fbpx
কলকাতাহেডলাইন

পুলিশ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার প্রতি নজর দিচ্ছেন না, তাঁরা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে কাজ করছেন, রাজ্যপাল

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:   মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ফের টুইট করে বিঁধলেন রাজ্যপাল। তিনি টুইটারে লিখেছেন, মমতার রাজত্বে যেভাবে রাজনৈতিক হিংসা ছড়িয়ে পড়েছে, তা আগে কখনও দেখা যায়নি। রাজ্যপাল খুব স্পষ্ট ভাষায় লিখেছেন, রাজনৈতিক হিংসার প্রতিটি ঘটনাই প্রমাণ করে, রাজ্যে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক। এরপরে তিনি বলেন, পুলিশের রাজনীতিকরণ করা হয়েছে। বিরোধী দলের সাংসদ ও নেতাদের প্রতি যে আচরণ করা হচ্ছে, তা খুবই চিন্তার বিষয়। পুলিশের আরও সমালোচনা করে রাজ্যপাল বলেন, পুলিশ অফিসাররা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার প্রতি নজর দিচ্ছেন না। তাঁরা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে কাজ করছেন।

মঙ্গলবার সকালে ট্যুইট করে রাজ্যপাল মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করে লিখেছেন, ‘আবেদন রাখছি রাজ্যপাল ও কেন্দ্রের সঙ্গে মোকাবিলা বন্ধ করুন। সংবিধান ও আইনের অনুশাসন মেনে আমরা দুর্ভোগে পড়া মানুষকে সেবা করতে পারবো। আসুন, জনসাধারন যে কঠিন সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে তা আমরা প্রশমিত করি। দুর্দশাগ্রস্থ লোকের পক্ষে কাজ করার জন্য সদা প্রস্তুত।’

রাজ্যে শাসক দল তৃণমূল এর আগে একাধিকবার রাজ্যপালকে বিজেপির মুখপাত্র বলে কটাক্ষ করেছে। কিন্তু রাজ্যপাল অমিত শাহের কাছে যা বলেছেন, তাতে সাধারণভাবে রাজ্যের বিরোধীদের বক্তব্যই ফুটে উঠেছে। শুধু বিজেপি নয়, বাম দলগুলি ও কংগ্রেসও বার বার করোনা পরিস্থিতি, রাজনৈতিক হিংসা ও ত্রাণ নিয়ে সরব হয়েছে। রাজ্যপাল যেভাবে অমিত শাহের কাছে নালিশ জানিয়ে এসেছেন, তাতে অনেকের ধারণা হয়, কেন্দ্রীয় সরকার এবার রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসনের কথা ভাববে। বিজেপি অবশ্য জানিয়েছে, এখনই তেমন সম্ভাবনা নেই। কেন্দ্র যদি মমতার সরকার ফেলে দেয়, তৃণমূল শহিদ সাজার চেষ্টা করবে। তাদের সেই সুযোগ দেওয়া হবে না।

আরও পড়ুন: করোনা মোকাবিলায় N-95 মাস্ক মোটেই নিরাপদ নয়, সতর্ক করল স্বাস্থ্যমন্ত্রক

সোমবার অমিত শাহের সঙ্গে একঘণ্টা বৈঠক করেন রাজ্যপাল। আলোচনার বিষয় ছিল তিনটি। প্রথমত পশ্চিমবঙ্গের কোভিড পরিস্থিতি। দ্বিতীয়ত রাজ্যে রাজনৈতিক হিংসা বৃদ্ধি পাওয়া। তৃতীয়ত আমফানের ত্রাণ বিলি নিয়ে ব্যাপক দুর্নীতি।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close