fbpx
পশ্চিমবঙ্গবিনোদনহেডলাইন

কুন্তল মুখোপাধ্যায়ের লেখা রাজনৈতিক নাটক ‘জননেতা’ উপস্থাপিত হল বসিরহাটে

গোবিন্দ রায়, কলকাতা: গণমাধ্যম মানুষের কথা বলে। তুলে ধরে গণতন্ত্রের কথা, তুলে ধরে মানুষের অভাব অভিযোগ। যখন আধুনিক গণমাধ্যমের এত উন্নতি হয়নি, সামাজিক মাধ্যমের এত বাড়বাড়ন্ত হয়নি তখন গণমাধ্যম হিসেবে নাটকই মানুষের কথা বলে এসেছে। চল্লিশের দশক থেকে এ পর্যন্ত একাধিক নাটক কাঁপিয়ে দিয়েছে রাজনৈতিক অবস্থান। প্রভাব ফেলেছে মানুষের মধ্যে। প্রভাব ফেলেছে সমাজ সভ্যতায়। একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে কুন্তল মুখোপাধ্যায়ের লেখা সেইরকমই এক রাজনৈতিক নাটক ‘জননেতা’ উপস্থাপিত হল বসিরহাটে। বসিরহাট সাত্ত্বিক-এর প্রযোজিত এই নাটকে তুলে ধরা হয়েছে গণতন্ত্রে জননেতার ভূমিকাকে।

‘জননেতা’র পরিচালক চন্দন মুখার্জি জানান, আমরা যে গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি, আস্থা রাখি সেই গণতন্ত্রের মূল কথাই হল সাধারণ মানুষ। সাধারণ মানুষ কর্তৃক নির্বাচিত হয় নেতা। এই নেতাই গণতন্ত্রের মানুষের হয়ে কথা বলে। জনমানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষা চাহিদা এই নেতার কার্যকলাপের মধ্যে দিয়েই বাস্তবে রূপ পায়। এই গোটা বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে নাটকে। দেখানো হয়েছে, গণতন্ত্রে জননেতা মানুষের বিশ্বাস ও আস্থার প্রতীক। মানুষ তাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করে, কিন্তু সেই নেতার বোধবুদ্ধি -বিচক্ষণতা যদি গণতন্ত্রের তথা জনসাধারণের কল্যাণ এর প্রতিকূল হয় এবং নেতার অহং সর্বস্ব পদক্ষেপে মানুষের কল্যাণের থেকে ক্ষতি হতে থাকে তাহলে গণতন্ত্রের সার্থকতা পায় কি? কি প্রশ্ন চিহ্ন সাধারণ মানুষের মধ্যে জাগানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:সংক্রমণ ঠেকাতে আতশবাজি বন্ধে নিষেধাজ্ঞা রাজ্যে

এছাড়াও মানুষ যাকে নির্বাচিত করল সে যদি বোধবুদ্ধিহীন হয় তাহলে এই জনসাধারণ কোথায় যাবে? কি হবে এতে প্রত্যাশার? গণতন্ত্র সার্থকতা পাবে কি?

Related Articles

Back to top button
Close