fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

প্রতিমার বায়না মেলেনি, চরম সঙ্কটে গ্রামবাংলার মৃৎশিল্পীরা

বাবলু ব্যানার্জি, কোলাঘাট: বাঙালির শ্রেষ্ঠ পুজো দুর্গাপুজো। দেখতে দেখতে আর মাত্র দুমাস ও বাকি নেই। আকাশে বৃষ্টি থেকে করোনার দাপট অব্যাহত। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বলছে বাঙালির শ্রেষ্ঠ পুজো এখনও কয়েক মাস বাকি রয়েছে। কিছুটা আশ্বাস পেলে ও চরম হতাশার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কোলাঘাট সহ আশপাশের বেশ কয়েকটি ব্লকের মৃৎশিল্পীরা। এই এলাকার মৃৎশিল্পীরা এই সময় যা উপার্জন করে সারাবছর তাদের সংসার চলে। বহু প্রতীক্ষিত বিশ্বকর্মা, দূর্গাপুজো, লক্ষ্মীপুজো, কালীপুজো সহ একের পর এক পুজো দোরগোড়ায় কড়া নাড়লেও মৃৎশিল্পীদের বায়না পুজো উদ্যোক্তারা না দেওয়ায় তারা হতাশ।রাস্তার ধারে মাঠে-ময়দানে কোনরকম ত্রিপল খাটিয়ে অস্থায়ী চালাঘরে চলে প্রতিমার কাজ।

বর্তমানে মৃৎ শিল্পের সঙ্গে জড়িত বহু শিল্পীরা এখন অসহায়। নোটবন্দি থেকে জিএসটি একের পর এক ফাঁড়া কাটিয়ে কোনরকমে উঠে দাঁড়ানোর চেষ্টা চলছিল, কিন্তু করোনা তাদের পথে নামালো। সরকারি সাহায্য না মিললেও নিজেদের শিল্পকলাকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য এই শিল্পকে আঁকড়ে ধরে ছিল। লকডাউনের মধ্যেই আচমকা আমফানের আগমন যেন সমস্ত স্বপ্নই এলোমেলো করে দিল। ফলে বিশ্ব মহামারী এই করোনা আবহে বাঙালির প্রিয় পুজো হবে কি না তা নিয়ে তৈরি হয়েছে ঘোর অনিশ্চয়তা। সব ভেবেই ব্লকের মৃৎশিল্পীরা কোন কূলকিনারা খুঁজে পাচ্ছে না। করোনার দাপট অব্যাহত থাকাকেই দায়ী করছে কোলাঘাট সহ আশপাশের কয়েকটি ব্লকের মৃৎশিল্পীরা।

আরও পড়ুন:গান্ধী পরিবারের বাইরের কেউ হোক কংগ্রেস সভাপতি, রাহুলের সুর মেলালো প্রিয়াঙ্কা

শহিদ মাতঙ্গিনী ব্লকের আস্তারা গ্রাম কুমারটুলি গ্রাম হিসাবে পরিচিত। এই গ্রামের মূর্তি কেবল জেলায় নয়. আশপাশের কয়েকটি জেলার যায়। প্রতিমার বরাদ আছে সারা বছর ধরেই কিন্তু এবারে সেই বরাত নেই।

কোলাঘাট ব্লকের মৃৎশিল্পী অনুপ ঘোড়াই, চন্ডী ওঝা, নির্মল ওঝা, বিজয় আদক, বিজয় পুরকাইত, অরবিন্দ পাত্র সহ অনেক শিল্পীই পূর্বপুরুষ ধরে এই শিল্পের সঙ্গে জড়িত। দুঃখের সঙ্গে জানান, ৭৮ সালের এত বড় বন্যা হয়েছে, ভিন্ন সময়ে নানা ঘাত-প্রতিঘাত এসেছে, এমন সংকট আমাদের জীবনে আসেনি। যে বরাত আসতো, এখন পুজো উদ্যোক্তারা বলছে, পুজোকে টিকিয়ে রাখার জন্য কোনওরকমে একটি প্রতিমা করে আমাদের দিন। যে চরম অর্থনৈতিক সংকটে আমরা এবারে ভুগতে শুরু করেছি, এই সংকট থেকে কবে আবার স্বাভাবিকে ফিরে আসব সেটাই এখন চিন্তার বিষয়।

Related Articles

Back to top button
Close