fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বুধবারের মধ্যে আলুর দাম নামাতে হবে ২৫টাকায়! ব্যবসায়ীদের নির্দেশ নবান্নের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা আবহে মানুষের উপার্জন না বাড়লেও মূল্যবৃদ্ধির জেরে রীতিমত নাভিশ্বাস ওঠার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। আর তার মধ্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্য বৃদ্ধিতে আরও নাজেহাল মানুষ। তার মধ্যেই বাঙালির হেঁশেলের গুরুত্বপূর্ণ আনাজ আলু কোথাও ৩০টাকা কেজি দরে, কোথাও ৩৫টাকা কেজি দরে তো কোথাও ৪০টাকা কেজি দরে। নবান্নের কানে খবর পৌঁছতেই বুধবারের মধ্যে আলুর দাম ২৫ টাকা প্রতি কেজি মূল্য বেঁধে দেওয়ার নির্দেশ দিল নবান্ন।
প্রসঙ্গত লকডাউনের যে সমস্ত জিনিস আকাল তৈরি না হলেও এই সুযোগে নিজেদের মুনাফা রীতিমতো বাড়িয়ে কামিয়ে নিচ্ছে একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী। বাজারের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে চলতি সপ্তাহে কিছু দিন বাজারের পরিদর্শন করেন নবান্নের টাস্ক ফোর্সের সদস্যরা। এর পরেই নবান্নে আলুর ব্যবসায়ীদের ডেকে বৈঠক করে রাজ্য সরকারের তরফে জানিয়ে দেওয়া হল আগামী বুধবারের মধ্যে আলুর দর ২৫ টাকা কেজিতে নামিয়ে আনতে হবে। কারন এই দরেই রাজ্য সরকারের সুফল বাংলার স্টল থেকে মিলছে আলু।
জানা গিয়েছে, কলকাতা, বারাসত মহকুমা, ব্যারাকপুর মহকুমা, সোনারপুর, বারুইপুর, বজবজ, হাওড়া ও হুগলি জেলার শিল্পাঞ্চল ও শহুরে এলাকাগুলিতে আলুর দর অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে গিয়েছে। যদিও জেলাগুলিতে আলুর দর এত চড়া না হলেও সেখানে ২৫ থেকে ৩০ টাকা কেজি দরে আলু মিলছে। আর সেই আলু সংগ্রহ করে নিয়ে ৩৫-৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হচ্ছে। উপায় না থাকায় তাই কিনতে বাধ্য হচ্ছেন মানুষ। কিন্তু চলতি বছর আলুর ফল ভাল হওয়ার পরেও কেন এমন সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। সেই সমস্যার সমাধানে অবশেষে হস্তক্ষেপ করল রাজ্য সরকার।
সেই কারণেই এবার আলুর দরে লাগাম পরাতে বাধ্য হল নবান্ন। বুধবার পর্যন্ত সময়সীমা বেঁধে দিয়ে নবান্ন থেকে আলু ব্যবসায়ীদের জানিয়ে দেওয়া হয়, প্রতি কিলো জ্যোতি আলুর দাম ২৫ টাকার মধ্যে নামিয়ে আনতেই হবে। খুচরো বাজার অনুযায়ী আলুর মূল দাম ধরতে হবে কিলো প্রতি ২৩ টাকা। বাকি দু’টাকা জ্বালানি খরচ বাবদ নেওয়া যাবে। নবান্ন সূত্রের খবর, এই চূড়ান্ত প্রস্তাবে এক প্রকার সায় দিয়েছে আলু ব্যবসায়ীরা। ফলে আগামী সপ্তাহে বুধবারের মধ্যে এই দামে বাজারে আলু মিলতেও পারে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে শুধু আলু নয়, লকডাউনের মধ্যে ক্রমশ চড়া হচ্ছে সবজির দামও। তা নিয়েও নবান্নে গোপনে রিপোর্ট দিয়েছেন টাস্কফোর্সের সদস্যরা। আলুর দর নিয়ন্ত্রণে এলে সেদিকেও নজর দেওয়া হবে বলে নবান্ন সূত্রের খবর।

Related Articles

Back to top button
Close