fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

পাকিস্তানে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদত্যাগ, শুরু তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী নিয়োগের প্রক্রিয়া

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্ক: রাজনৈতিক দোলাচালের মধ্যেই ইস্তফা দিলেন পাক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মইদ ইউসুফ।আর অন্যদিকে পাকিস্তানে তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। পাকিস্তানের অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেশটির প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি গুলজার আহমেদের নাম প্রস্তাব করেছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

দীর্ঘ টালবাহানার পর গত মাসের ২৮ তারিখ পাক জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে বিরোধীদের আনা অনাস্থা প্রস্তাব পেশ হয়েছিল। ৩ এপ্রিল অনাস্থা ভোট হওয়ার কথা থাকলেও নয়া কৌশলে এড়িয়ে যান তিনি। অধিবেশন চলাকালীন সংসদ ভেঙে দেওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী এবং পাকিস্তানের জনতার মত নিয়ে নির্বাচনের মাধ্যমে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের আর্জিও গৃহীত হয়েছিল।

এই রাজনৈতিক অরাজকতার মধ্যেই  ইস্তফা দিলেন পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মইদ ইউসুফ। সোমবার টুইট করে ইস্তফা দেওয়ার বিষয়টি সকলকে জানিয়েছিলেন ইউসুফ।তিনি লেখেন, ‘আজ অত্যন্ত সন্তোষজনক পরিস্থিতিতে আমি এই গুরুত্বপূর্ণ পদ ছেড়ে দিচ্ছি। আমি জানি এনএসএ-র কার্যালয় এবং এনএসডি অত্যন্ত সক্ষম প্রতিষ্ঠান। ব্যতিক্রমী কাজ করতেই এরা অভ্যস্ত। আমর বিশ্বাস পাকিস্তানকে এরা আরও গর্বিত করবে।”

এদিকে পাকিস্তানে তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এই নিয়োগে সুপারিশ চেয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও বিরোধীদলীয় নেতা শাহবাজ শরিফকে চিঠি দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি। এ চিঠি পাওয়ার পরপরই গতকাল সোমবার ইমরান খান দেশটির সাবেক প্রধান বিচারপতি গুলজার আহমেদের নাম প্রস্তাব করেছেন। পাকিস্তানের অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেশটির সাবেক প্রধান বিচারপতি গুলজার আহমেদের নাম প্রস্তাব করেছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। গত ফেব্রুয়ারিতে অবসরে যান গুলজার আহমেদ।

পাকিস্তানের সংবিধান অনুযায়ী পার্লামেন্টে ভেঙে যাওয়ার পর একজন অন্তর্বর্তী বা তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দিতে হয়। সেই অনুযায়ী বিদায়ি প্রধানমন্ত্রী ইমরান এবং বিদায়ি পার্লামেন্টের প্রধান বিরোধী দল পিএমএলের (এন) নেতা শাহবাজ শরিফকে সোমবার চিঠি পাঠিয়েছেন প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি।

গুলজার আহমেদ ২০১৯ সালের ২১ ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি দেশটির ২৭ তম প্রধান বিচারপতি ছিলেন।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close