fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ফের অজয় নদীতে হড়পা বান, জলের তোড়ে রাস্তা ভেঙে বিপত্তি

জয়দেব লাহা, দুর্গাপুর:- বর্ষা ঢুকতেই ভারী বর্ষণ। আর তার জেরে নদীতে হড়পা বান। আর সেই জলের তোড়ে আবারও ভেঙে পড়ল নদীর ওপর তৈরি অস্থায়ী রাস্তা। আর রাস্তা ভাঙায় বিপত্তি। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দুই জেলার। দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি কাঁকসার শিবপুরে অজয় নদীতে।

কাঁকসার শিবপুরের অজয় নদীর অপরপ্রান্তে বীরভুমের জয়দেব কেঁন্দুলী। মূলত দুই জেলার যোগাযোগের অস্তায়ী রাস্তা। মকরসংক্রান্তির মেলা ছাড়াও সারা বছরই হাটবাজার সহ অন্যান্য কাজে দুই জেলার মানুষের যোগাযোগ রাস্তা ছিল অজয় নদীর ওপর।

প্রতিবছরই বর্ষার জল নামলেই সিমেন্টের পাইপ বসিয়ে পাথর, মোরাম, মাটি দিয়ে রাস্তাটি তৈরি হয়। লাল মাটির ধুলো ঠেকাতে দেওয়া হয় ভাঙা রাস্তার পিচের টুকরো। তার ওপর দিয়ে সাইকেল, রিক্সা ছাড়াও নানান বাস, লরি যাতায়াত করত। জয়েদেবে সপ্তাহে দুদিন আশপাশের এলাকার বড় হাট বসে। কাঁকসার শিবপুর, অজয়পল্লী সহ প্রায় ২৫ গ্রামের কৃষক, ছোট ব্যাবসায়ী ওই হাটে দোকান বসায়। এছাড়াও ওপারে হেতমপুর স্কুল, কলেজ অনেক পড়ুয়া যায়। যদিও লকডাউনে স্কুল কলেজ বন্ধ।

বৃহস্পতিবার রাতে আবারও অজয়নদীতে আচমকা হু হু করে জল বাড়তে থাকে। হড়পা বানে ভেঙে পড়ে কাঁকসার শিবপুরের ওই অস্থায়ী রাস্তা। রাত থেকে জলরাশি বাড়তে থাকে। ফলে দুঃশ্চিন্তায় পড়ে এলাকাবাসী। নদী পারাপারে সমস্যা হয়। দুই জেলার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

বিদবিহার পঞ্চায়েত সদস্য গিরিধারী সিনহা জানান,” আগেও একইরকমভাবে দু-বার রাস্তা ভেঙেছিল। তখনও ভোগান্তির শিকার হয় সাধারন মানুষ। এদিন আবারও চরম দুর্ভোগে সাধারন মানুষ। বহু মানুষের জীবিকায় ধাক্কা পড়ল। নদীর ওপারে জয়দেবে মঙ্গলবার ও শনিবার হাট বসে। সেখানে রুজির তাগিদে এপার থেকে প্রায় শ’ পাঁচেক সবজি বিক্রেতা, অন্যান্য হকার জয়দেব হাটে দোকান বসাতে যায়। রাস্তা ভেঙে পড়ায় তাদের রুজিতে টান পড়ল। আমরা বিষয়টি ব্লক প্রশাসনকে জানিয়েছি।”

কাঁকসা বিডিও সুদীপ্ত ভট্টাচার্য জানান,” বর্ষার বৃষ্টিপাতের জেরে নদীতে জল বেড়েছে। জলের তোড়ে ভেঙে পড়েছে। ঝুঁকি নিয়ে পারাপার নিষেধ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ওই এলাকার পঞ্চায়েতকে সতর্ক করা হয়েছে। এবং এলাকায় মাইকিং করে গ্রামবাসীদের সতর্ক করা হয়েছে।‘’

Related Articles

Back to top button
Close