fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

জমি বাড়ি লিখে না দেওয়ায় মিষ্টির সঙ্গে বিষ খাইয়ে মাকে খুনের অভিযোগ ছেলের বিরুদ্ধে

শুভেন্দু  বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: জমি ও বাড়ি লিখে না দেওয়ায় মিষ্টির সঙ্গে বিষ খাইয়ে মাকে খুনের অভিযোগ উঠল ছেলের বিরুদ্ধে। আসানসোলের জামুড়িয়া থানার নন্ডি গ্রামে এই ঘটনাটি ঘটেছে। ঘটনায় গোটা এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। শুক্রবার বিষ খাওয়ানোর ঘটনাটি ঘটে। রবিবার দুপুরে আসানসোল জেলা হাসপাতালে মহিলার মৃত্যু হয়। মৃতার নাম পারুল ঘোষ (৫০)। ঘটনার পরেই মুল অভিযুক্ত পারুল ঘোষের একমাত্র ছেলে রাজু ঘোষ পালিয়ে যায়। পারুল ঘোষ আসানসোল জেলা হাসপাতালের ফিমেল ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চিকিৎসককে মৃত্যুকালীন জবানবন্দি দেন। তাতে তিনি বলেন, ছেলে রাজু জমি ও বাড়ি তার নামে লিখে দেওয়ার জন্য নিয়মিত তার উপরে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালাত। শেষ পর্যন্ত আমি তা লিখে না দেওয়ায় ছেলে আমাকে মিষ্টির সঙ্গে বিষ মিশিয়ে খাইয়ে দিয়েছে৷ মৃতার জামাই গৌতম ঘোষ এই বিষয়ে জামুড়িয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। তার ভিত্তিতে পুলিশ একটি মামলা করে তদন্ত শুরু করেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, জামুড়িয়া থানার নন্ডি গ্রামের বাসিন্দা পারুল ঘোষের স্বামী বেশ কয়েক বছর আগে মারা গেছেন। তার এক ছেলে রাজু ঘোষ ছাড়াও এক মেয়েও আছে। বছর কয়েক আগে মেয়ের বিয়ে হয়েছে। পারুল ঘোষ পরে ছেলেরও বিয়ে দেন৷ কিন্তু নানা কারণে ছেলের স্ত্রী শ্বশুর বাড়ি ছেড়ে চলে যায়। পারুলদেবীর নন্ডী গ্রামে তিন কাটা জমি সহ একটি বাড়ি আছে। সেই জমি ও বাড়ি নিজের নামে করে নেওয়ার জন্য বেশ কিছু দিন ধরে রাজু চেষ্টা করছিল। মায়ের ওপরে তার জন্য সে চাপও দিচ্ছিল। কিন্তু পারুলদেবী তা করছিলেন না। তারজন্য মায়ের সঙ্গে প্রায় দিনই ছেলের ঝগড়া হত।

আরও পড়ুন- কুপিয়ে খুন, ঘরের ভিতর থেকে উদ্ধার ২ শিশুসহ একই পরিবারের ৫ জনের দেহ

গত শুক্রবার পারুলদেবী বাড়িতে হঠাৎই অসুস্থ হয়ে পড়েন। তার পেটে সমস্যা শুরু হয়। মাকে রাজু আসানসোল জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসে ও ভর্তি করে৷ ভর্তির সময় চিকিৎসককে রাজু বলে, মায়ের পেটের অসুখ হয়েছে।  কিন্তু ভর্তির পরে পারুলদেবী চিকিৎসকের কাছে জবানবন্দি দিতে চান৷ সেইমতো শুক্রবার রাতেই পারুল ঘোষ এক চিকিৎসককে মৃত্যুকালীন জবানবন্দিতে ছেলের কুকীর্তির কথা জানান। মা চিকিৎসককে সব জানিয়েছে, এই কথা জানার পরেই ছেলে বেপাত্তা হয়ে যায়।

এদিন হাসপাতালে মৃতার জামাই বলেন, শাশুড়ির ওপরে শ্যালক যে জমি ও বাড়ি লিখে দেওয়ার জন্য মারধর করে তা জানতাম৷ শাশুড়ি অসুস্থ হয়ে যাওয়ায় তাকে আসানসোল জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানতাম৷ পরে শাশুড়ি আসল ঘটনা বলেন। পুলিশকে সব জানিয়েছি। জামুড়িয়া থানার পুলিশ জানায়, ঘটনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত শুরু করা হয়েছে। অভিযুক্ত ছেলে ফেরার রয়েছে। আসানসোল জেলা হাসপাতালে মহিলার মৃতদেহর ময়নাতদন্ত করা হবে।

Related Articles

Back to top button
Close