fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বরাত দিয়েছে তন্তুজ…করোনা যোদ্ধাদের জন্য কাটোয়ার দর্জিরা তৈরি করছেন পিপিই কিট

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: রাজ্য সরকারের সংস্থা তন্তুজ পাশে দাঁড়ানোয় লকডাউনে মুখে হাসি ফুটেছে পোশাক তৈরির কারিগরদের।তবে তন্তুজের বরাত অনুযায়ী পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়ার পোশাক তৈরির কারিগররা কোনও সাধারণ পোশাক এখন তৈরি করছেন না।তাঁরা ওই পোশাক তৈরি করছেন শুধুমাত্র বাংলার করোনা যোদ্ধাদের জন্য।যার পোশাকি নাম ‘পিপিই কিট’।

করোনা সংক্রমণ মোকাবিলার কাজে পিপিই কিটের গুরুত্ব অপরিসীম।সেই কিটের যোগান দিতে শয়ে শয়ে দর্জি দিন রাত এক করে কাটোয়ার পোশাক কারখানায় বসে কাজ করে চলেছেন। তাঁদের তৈরি ৫০ হাজার কিট ইতিমধ্যেই তন্তুজকে সরবরাহ করা হয়ে গিয়েছে। এখনও আরও বহু কিট তারা যোগান দেবে। আর এই পিপিই কিট তৈরির কাজ করেই এই কঠিন সময়ে আর্থিক সমস্যা অনেকটাই লাঘব হয়েছে কাটোয়ার দর্জিদের।

কাটোয়া পুরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডে রয়েছে একটি পোশাক তৈরির কারখানা। তার কর্ণধার দীপা আগরওয়াল বুধবার জানালেন, তাঁর গারমেন্টস ফ্যাক্টরিতে মূলত খাদি ও হ্যান্ডলুমের চুড়িদার, স্কার্ট ফ্রক ইত্যাদি তৈরি হয়। শারদোৎসব কিংবা ইদের আগে আগে পোশাক তৈরির কাজের চাপ বহুগুণ বেড়ে যায়।কিন্তু এবছর করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে সব কিছুরই উলট-পালট ঘটে যায়। লকডাউন চালু হওয়ার পর তাঁদের গারমেন্টস ফ্যাক্টরিতেও থমকে যায় পোশাক তৈরির কাজ। দর্জিরা সকলেই কর্মহীন হয়ে পড়েন।

এই অবস্থার মধ্যে তন্তজ সংস্থার মাধ্যমে পিপিই কিট তৈরির বরাত মেলায় কিছুটা হলেও দর্জিদের মুখে হাসি ফুটেছে। এখন চুড়িদার , স্কার্ট ফ্রক তৈরির ভাবনা একেবাবে ছেড়ে দিয়ে দিন রাত এক করে ফ্যাক্টরিতে শুধুই চলছে পিপিই কিট তৈরির কাজ।

দীপা আগরওয়াল জানালেন, তাঁদের শতাধিক দর্জি মিলে প্রতিদিন তৈরি করছে প্রায় ২০০০ কিট।ইতিমধ্যে ৫০ হাজার কিট তন্তুজকে সরবরাহও করে দিয়েছেন।

এই বিষয়ে রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ বলেন, “করোনা মোকাবিলায় রাজ্যে পিপিই কিটের চাহিদা বেড়েছে।সেই চাহিদা পূরণের জন্য রাজ্য সরকারের তরফে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।”

Related Articles

Back to top button
Close