fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

গারুলিয়ায় করোনা মুক্ত হয়ে বাড়ি ফিরলেন তিন ভাই, স্বাগত জানালেন প্রতিবেশীরা

অলোক কুমার ঘোষ, ব্যারাকপুর : উত্তর ২৪ পরগনার গারুলিয়ায় করোনা মুক্ত হয়ে বাড়ি ফিরলেন একই পরিবারের তিন সদস্য, সরকারি হাসপাতালের সুচিকিৎসা পেয়ে খুশি তিন করোনা যোদ্ধা । করোনা মুক্ত হয়ে বাড়ি ফেরা তিন ভাইকে ফুলের মালায় তাদের স্বাগত জানালেন পাড়া প্রতিবেশীরা।

করোনা যুদ্ধ জয় করে ঘরে ফিরলেন একই পরিবারের তিন সদস্য । তারা সম্পর্কে তিন ভাই । এদিন বিকেলে ওই তিন ভাই তাদের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার গারুলিয়া পুরসভার অন্তর্গত ২১ নম্বর ওয়ার্ডের এস এস জুটমিল রোডের বাড়িতে ফিরে আসেন করোনা মুক্ত হয়ে । করোনা মুক্ত হয়ে বাড়ি ফিরলেন মহম্মদ কায়েশ আলী, শাকিব আনোয়ার এবং সাজিদ আনোয়ার । এই ঘটনায় মনে সাহস পেল গারুলিয়া পুরসভা এলাকার এস এস জুটমিল রোডের বাসিন্দারা সকলেই । এদিন বিকেলে রাজারহাটের করোনা হাসপাতাল থেকে তাদের সুস্থ করে রাজ্য সরকারের অ্যাম্বুলেন্সে করে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হয় । ওই তিন যুবকের মাও করোনা আক্রান্ত, তবে জানা গেছে তিনি এখন

সুস্থতার পথে। তিনিও করোনা আক্রান্ত হয়ে বারাসাতের করোনা হাসপাতালে ভর্তি আছেন । তিনি ভালো আছেন বলে জানা গেছে । কায়েশ আলীর বৃদ্ধ বাবা দীর্ঘদিন ফুসফসের অসুখে ভুগছিলেন পরে তার হাসপাতালেই মৃত্যু হলে জানা যায় । তিনি করোনা পজিটিভ ছিলেন বলে জানা গেছে । এরপর ওই পরিবারের সদস্যদের সকলকে বারাসাতের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে নিয়ে যায় প্রশাসন । সেখানে প্রত্যেকের লালা রসের নমুনা পরীক্ষা করা হলে দেখা যায় ওই পরিবারের ৪ জন সদস্যরা সকলেই করোনা পজিটিভ । তখনই ওই পরিবারের তিন ভাইকে রাজারহাটের করোনা হাসপাতালে এবং তাদের মা কে বারাসাতের করোনা হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় । সেখানে চিকিৎসা পরিষেবা পেয়ে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে করোনা মুক্ত শরীরে তিন ভাই বাড়ি ফিরে আসেন। তবে তাদের মা এখনো ভর্তি বারাসাতের করোনা হাসপাতালে।

আরও পড়ুন: মর্মান্তিক, ৪ শিশুসহ ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার একই পরিবারের ৬ সদস্যর ঝুলন্ত দে

বাড়ি ফিরে বড় ভাই মহম্মদ কায়েশ আলী জানিয়েছেন, “সরকারি চিকিৎসা পরিষেবা খুব উন্নত, খাওয়া দাওয়া বেশ ভাল। সকলের উচিত সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করা এবং মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক । সরকারি নির্দেশ মেনে চললে সকলেই সুস্থ হয়ে যাবেন করোনা থেকে ।” এদিন করোনা যোদ্ধাদের পাড়া প্রতিবেশীরা ফুলের মালা পরিয়ে পাড়ায় স্বাগত জানান । সুস্থ শরীরে বাড়ি ফিরলেও চিকিৎসকদের পরামর্শ মত প্রত্যেককে আপাতত ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টােইনে থাকতে হবে । এই ঘটনায় খুশী পাড়া প্রতিবেশীরা সকলেই।

Related Articles

Back to top button
Close