fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

অনলাইন শুনানির পক্ষেই সহমত, হাজিরাতে না হাইকোর্টের তিন আইনজীবী সংগঠনের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কোর্ট খুললেও বার অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে সহমত হয়ে বৃহস্পতিবার থেকে আদালতে হাজির হয়ে কাজে যোগ দিচ্ছেন না হাইকোর্টের আইনজীবিদের ওপর দুই সংগঠন বার লাইব্রেরি ও ইনকর্পোরেটেড ল’সোসাইটিও।

হাইকোর্ট প্রশাসনের তরফে এদিন থেকে পরীক্ষামূলকভাবে এজলাসে হাজির হয়ে বিচার প্রক্রিয়া শুরু করার সিদ্ধান্ত নিলেও তার বিরোধিতা করে গত ৮ জুন কাজে যোগ না দেওয়ার কথা জানিয়েছিল হাইকোর্টের বৃহত্তম আইনজীবী সংগঠন বার অ্যাসোসিয়েশনের আইনজীবীরা। এবার তাদের পক্ষেই সহমত এজলাসে হাজির হয়ে কাজে যোগ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্যারিস্টারদের সংঘঠন বার লাইব্রেরি ও ইনকর্পোরেটেড ল’সোসাইটি।

ইনকর্পোরেটেড ল’সোসাইটির সম্পাদক পরিতোষ সিনহা জানান, ‘এখন যা পরিস্থিতি তাতে আদালতে গিয়ে কাজ করা সম্ভব নয়। যতদিন না পর্যন্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে ততদিন এভাবে অনলাইনে শুনানি হোক। সুপ্রিম কোর্টও সিদ্ধান্ত নিয়েছে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত আপাতত তারা কাজে যোগ দিচ্ছে না।’

আইনজীবীদের সুরক্ষার কথা ভেবে বার অ্যাসোসিয়েশনের প্রস্তাব না মানায় আগেই কাজে যোগ না দেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছিল বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অশোক ঢন্ঢনিয়া। এদিন তিনি হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির কাছে লিখিতভাবে জানিয়েছেন, কলকাতা হাইকোর্টের সঙ্গে যুক্ত ৭৫ শতাংশ আইনজীবী দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলা নিয়ে কলকাতার পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন জেলা থেকে আসেন। সবচেয়ে বড় গণমাধ্যম ট্রেন, বাস ও অন্যান্য যানবাহন পরিষেবা স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত তাদের পক্ষে আদালতে হাজির হয়ে কাজে যোগ দেওয়া অসম্ভব। এই অবস্থায় যদি আদালতে শুনানি শুরু হয় তাহলে এই ৭৫ শতাংশ আইনজীবী কাজ থেকে বঞ্চিত হবেন।

তাঁর আর্জি, ‘সবার কথা মাথায় রেখে যানবাহন পরিষেবা স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এভাবেই অনলাইনে মামলা শুনানি হোক। তবে সব মামলার ক্ষেত্রেই অনলাইনে মামলাদয়ের ও ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শুনানি হোক। আর যদি এর মধ্যে যানবাহন পরিষেবা স্বাভাবিক হয়ে যায় তাহলে তাদের কাজে যোগ দিতে কোন আপত্তি নেই। তবে আইনজীবিদের সুরক্ষার কথা মাথায় রাখতে হবে হাইকোর্ট প্রশাসনকে।

Related Articles

Back to top button
Close