fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

চিন ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতকে সাহায্য করার উদ্দেশ্যে বড় সিদ্ধান্ত আমেরিকার

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: চিন ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতকে সাহায্য করার উদ্দেশ্যে বড় সিদ্ধান্ত গ্ৰহণ করল আমেরিকা। এই বিষয়ে হোয়াইট হাউজের তরফে একটি বিবৃতিতে বলা হয়, ‘প্রেসিডেন্ট সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে এবার থেকে সামরিক ড্রোন বিক্রির ক্ষেত্রে ৮০০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টার বেগকে সীমা ধরা হবে। এই সিদ্ধান্তের ফলে স্ট্র্যাটেজিক ভাবে আমেরিকার মিত্র রাষ্ট্রদের অনেক সুবিধা হবে। যার জেরে আমাদের নিজেদের দেশে নিরাপত্তাও আরও সুদৃঢ় হবে।’

জানা গিয়েছে, সামরিক ড্রোন কেনার ক্ষেত্রে পূর্ব আরোপিত বেশ কিছু বিধিনিষেধ শিথিল করছে ওয়াশিংটন যার জেরে লাভবান হবে ভারত। নয়া নির্দেশ অনুযায়ী, ৮০০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে চলা ড্রোন কিনতে আর বাধা থাকল না ভারতের। আর এর জেরে এবার নিজেদের সেনাকে চিনা বন্দুকের সামনে না পাঠিয়েই লাদাখে নজরদারি চালাতে পারবে ভারত।

প্রসঙ্গত, ভারত-চিনের স্নায়ুযুদ্ধের মধ্যে সমরসজ্জা বাড়াতে পাকিস্তানকে সাহায্য করছে বেজিং। ইসলামাবাদকে চারটি অস্ত্রবাহী ড্রোন দিচ্ছে ড্রাগনের দেশ। মুখে বলা হচ্ছে, চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর ও গদর বন্দরে নজর রাখতে এই ড্রোনগুলি ব্যবহার করা হবে। কিন্তু এর পিছনে অন্য উদ্দেশ্য দেখছে বিশেষজ্ঞ মহল। আর মনে করা হচ্ছে চিনের এই চালকে প্রতিহত করতেই মার্কিন প্রশাসন তাদের বিধিনিষেধ শিথিল করার সিদ্ধান্ত নেয়। বেজিংকে পাল্টা চাপে রাখতে কোমর বেঁধেছিল ভারতও। আমেরিকার কাছ থেকে অত্যাধুনিক ড্রোন কিনতে আলোচনা শুরু হয়েছিল। এর ফল স্পরূপ আমেরিকার এই সিদ্ধান্ত।

উল্লেখ্য, পাকিস্তান ছাড়াও এশিয়ার বহু দেশে এই ড্রোন বিক্রি করেছে বেজিং। এরই মাঝে মার্কিন ড্রোন প্রস্তুতকারক সংস্থার সঙ্গে কথা বলতে শুরু করেছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। ভারতীয় সেনা মার্কিন ড্রোন প্রেডেটর-বি কিনতে চাইছে। এই ড্রোনগুলি নজরদারি চালাতে কার্যক্ষম। ফলে সহজেই শত্রুর ঘরে উঁকি মেরে ইনটালিজেন্স রিপোর্ট তৈরিতে সাহায্য করবে। তেমনই আবার লেজার বোমা বা মিসাইল দিয়ে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতেও সক্ষম।

Related Articles

Back to top button
Close