fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

রাষ্ট্রীয় আবেগের জয় হল: ভিএইচপি

রক্তিম দাশ, কলকাতা: বাবরি মামলার রায়ে আদবানি, যোশি সহ ৩২ জনের নির্দোষ প্রমাণিত হওয়ার ঘটনায়, রাষ্ট্রীয় আবেগের জয় হল বলে বুধবার প্রতিক্রিয়া জানাল অযোধ্যার শ্রী রাম জন্মভূমি আন্দোলনের প্রধান সংগঠন বিশ্বহিন্দু পরিষদ (ভিএইচপি)। এই সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতের এই রায় পূর্বের সুপ্রিম কোর্টের অযোধ্যা নিয়ে রায়কেই মান্যতা দিল। এমনটাই মন্তব্য হিন্দুত্ববাদি সংগঠনটির।

এদিন ভিএইচপি-ও কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সুরেন্দ্র জৈন যুগশঙ্খকে বলেন, ‘সত্য মেব জয়তে’। আজকের আদালতে এই বিজয়, সমগ্র দেশের বিজয়। অযোধ্যায় রামভক্তরা সেদিন যা ভেঙেছিলেন তা ছিল দেশের কলঙ্কময় ইতিহাসের প্রতীক। এটা ভাঙা কোনও ষড়যন্ত্র ছিল না। ছিল রাষ্ট্রিয় আবেগ। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে যে ষড়যন্ত্রের গল্প সাজানো হয়েছিল তা আদালত উড়িয়ে দিয়েছে। আদালতের এই রায় প্রশংসনীয়।’

শ্রীরাম বিরোধীদের এবার দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত বলে মনে করেন সুরেন্দ্র জৈন। তিনি বলেন,‘ এমন অনেক মহাপুরুষ ছিলেন যাঁদের এই মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছিল। অনেকে এই ষড়যন্ত্র থেকে মুক্তি না পেয়েই প্রয়াত হয়েছেন। যাঁরা বেঁচে আছেন তাঁরা মুক্তি পেলেন। কিন্তু যাঁরা পেলেন না তাঁদের কাছে রাম বিরোধীদের ক্ষমা চাওয়া উচিত। এটা সত্য ও ন্যায় বিচারের জয়। রামের ভক্তরা এই রায়ের জন্য ২৮ বছর ধরে ধৈর্য ও সাহসের সঙ্গে অপেক্ষা করেছিলেন।’

আরএসএসের পক্ষে সুরেশ ভাইয়াজি যোশি বলেছেন,‘ সব অভিযুক্তদের আদালত যে বেকসুর খালাস দিয়েছে তা সংঘ পরিবার স্বাগত জানায়।’

অযোধ্যার রামন্দিরের প্রধান পুরোহিত আর্চায্য সত্যেন্দ্রনাথ দাস বলেন,‘ আজ দ্বিতীয়বারের জন্য অযোধ্যাবাসী এবং সাধু-সন্তরা খুশি হলেন। ত্রেতা যুগে ভগবান শ্রীরামের জন্ম। তখন ইসলাম কোথায়? অনেক পরে এসে এরা মন্দির ভেঙেছে। শ্রীরামের জন্মভূমি দখল করেছে। অযোধ্যাবাসীরা সব জানেন। এতদিন যা যা অভিযোগ ছিল তা এখন অসত্য বলে প্রমাণ হওয়া শুরু হয়েছে।’

বিশ্বহিন্দু পরিষদের পূর্ব ক্ষেত্রর সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপন মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্টেও রায়ে আগেই শ্রীরাম জন্মভূমি প্রমাণ হয়ে গিয়েছে। তখন এই রায় হবে এটাই কাম্য ছিল। আমরা কারও জায়গা দখল করিনি। বাবরি মসজিদটাই ছিল অবৈধ। যাঁদের ওপর মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছিল রায়ে তাঁরা নির্দোষ প্রমাণ হতেন এটা আমরা জানতাম।’

আরও পড়ুন:স্বাগত! বলছেন রাষ্ট্রবাদী মুসলিমরা

তৎকালীন বজরং দলের নেতা বীরবাহাদুর সিং অযোধ্যায় বাবরি ধ্বংসের অন্যতম সাক্ষি ছিলেন। এদিন তিনি বলেন, ‘আমরা যারা এই আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম আমরা জানতাম রাম জন্মভূমি কে ভেঙেই বাবর মসজিদ বানিয়ে ছিল। ভারতবর্ষের মাটিতে জেহাদী শাসকরা প্রায় ৩০,০০০ মন্দির ভেঙ্গে ছিল। তার মধ্যে একটি মন্দির উদ্ধার হল। আর আমাদের আন্দোলনকে মহামান্য আদালত স্বীকৃতি দিলেন রাম জন্মভূমি আন্দোলন কোন অনৈতিক আন্দোলন ছিল না। রোমিলা থাপারের লেখা ইতিহাস পড়া বামপন্থীরা বিকৃত ইতিহাস শিখিয়ে দেশকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে সেটা আরেকবার প্রমাণিত হল।’

 

Related Articles

Back to top button
Close