fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

পশ্চিম বর্ধমান জেলায় দুর্গাপুজোর জন্য ৭০টি পুলিশ সহায়তা কেন্দ্র

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল:  আসানসোল দুর্গাপুর পুলিশ কমিশনারেটের পক্ষ থেকে আসানসোল ও দুর্গাপুরে দুর্গাপুজো উপলক্ষে বিভিন্ন পুজো মন্ডপের কাছে পুলিশ সহায়তা কেন্দ্র বা পুলিশ অ্যাসিসটেন্ট বুথ করা হচ্ছে।  মঙ্গলবার সকালে বার্নপুরের চিত্রা সিনেমা হল সংলগ্ন গ্যালাক্সি মলের কাছে একটি পুলিশ সহায়তা কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন পুলিশ  কমিশনার সুকেশ কুমার জৈন ও পশ্চিম বর্ধমানের জেলাশাসক পূর্ণেন্দু কুমার মাজি। একই সঙ্গে এদিন আসানসোল ও দুর্গাপুরের জন্য দুর্গাপুজোর সময় বিভিন্ন বিষয়ে সচেতন করতে দুটি ট্যাবলোরও উদ্বোধন করেন পুলিশ কমিশনার ও জেলাশাসক। পুলিশ কমিশনার সুকেশ কুমার জৈন বলেন, জেলা বা পুলিশ কমিশনারেট এলাকায়  সবচেয়ে বেশি ভিড় হয় এমন পুজো এলাকার কাছে পুলিশের পক্ষ থেকে এই ধরনের ৭০ টি পুলিশ সহায়তা কেন্দ্র  করা হচ্ছে। এর উদ্দেশ্য হচ্ছে যাতে সমস্ত ধরনের নিয়ম কানুন ও করোনার জন্য স্বাস্থ্য বিধি মেনে সাধারণ মানুষ পুজো দেখতে আসেন তার জন্য সচেতন করা। প্রতিটি বুথ থেকে প্রতিমুহূর্তে মাইকে ঘোষণা করা হবে যে, সবাই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন, মুখে মাস্ক পড়ে  পুজো দেখুন। যথা সম্ভব ভিড় এড়িয়ে চলুন। যাদের মুখে মাস্ক থাকবে না তাদেরকে এই বুথ থেকে মাস্ক বিলি করা হবে। একইসঙ্গে হ্যান্ড স্যানিটাইজারও দেওয়া হবে। তিনি আরো বলেন, বুথ থেকে রুট ম্যাপ দেওয়া হবে।  যদি কোন মানুষ কোনো রকম তথ্য জানতে চান তাও জানান হবে। এছাড়াও বিভিন্ন বার্তা সহ ফ্লেক্স লাগানো হবে।

জেলাশাসক পূর্ণেন্দু মাজি বলেন , কোন মানুষ  মাস্ক ছাড়া মন্ডপ বা প্যান্ডেলের আশপাশে থাকতে পারবে না । এর জন্য ৪ লক্ষ  মাস্ক পুলিশ ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিতরণ করা হবে। সব বুথেও মাস্ক থাকবে। যারা মাস্ক ছাড়া আসবেন তাদের তা দেওয়া হবে । একইসঙ্গে, পুজোর দিনগুলোতে  যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রণও করা হবে। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে  উপস্থিত ছিলেন ডিসিপি (হেডকোয়ার্টার) অংশুমান সাহা, ডিসিপ (সেন্ট্রাল) সায়ক দাস, ডিসিপি ( পশ্চিম)  অনমিত্র দাস, ডিসিপি ( ট্রাফিক) মিস পুষ্পা।

[আরও পড়ুন- ব্লাড ব্যাঙ্কগুলিতে রক্তের সংকট কাটাতে আয়োজিত হল রক্তদান শিবির]

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, পুজোর জন্য আসানসোল ও দুর্গাপুরে মোট ১৩ টি জায়গায় নো এন্ট্রি  থাকছে ২২ থেকে ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত। আসানসোলের জিটি রোডের পাম্পু তলাও থেকে আশ্রম মোড় ও আশ্রম মোড় ভায়া যোগিস্থান পর্যন্ত যানবাহন চলবে। ইসমাইল  মোড় থেকে হটন রোড মোড়, কোর্ট মোড় থেকে বিদ্যাসাগর মূর্তি মোড়, রানিগঞ্জের শিশুবাগান মোড় সিআর রোড ক্রসিং এতোয়ারি মোড়, বড় বাজার ক্রসিং থেকে তিলক রোড,  এমআরএএস মোড় থেকে স্কুল পাড়া,  দুর্গাপুরের ভিরিঙ্গী মোড় থেকে প্রান্তিকা, রেকাল পার্ক থেকে জংশন মোড়, চণ্ডীদাস মোড় থেকে নিউটাউন মোড়, ফুলঝোর মোড় থেকে বি – ওয়ান মোড়, ভিরঙ্গি মোড় থেকে সার্ভিস রোডে বিকেল চারটা থেকে নো এন্ট্রি কার্যকর হবে। একই সঙ্গে, কুলটির লিথুরিয়া রোডে বাস ও অটো চলাচল নিষিদ্ধ করা হবে।

মোট ১০টি জায়গায় রাস্তা পুজোর দিনগুলোতে ওয়ান ওয়ে করা হচ্ছে। ২২ থেকে ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত যে রাস্তাগুলি ওয়ান ওয়ে থাকবে তার মধ্যে রয়েছে বার্ণপুরের চিত্রা সিনেমা মোড় থেকে ভগত সিং মোড়, বিএনআর মোড় থেকে গ্যালাক্সি মোড়, নিউটাউন মোড় থেকে চিত্রা মোড়, কুলটির নিয়ামতপুর মোড় থেকে টহরাম মোড়, টহরাম মোড় থেকে নিয়ামতপুর মোড়, ইসকো নিউ রোড, জামুরিয়া থানার মোড় থেকে সিনেমা মোড়, সিনেমা মোড় থেকে থানা মোড় ভায়া বাইপাস, দুর্গাপুরের মুচিপাড়া থেকে বাঁকুড়া মোড়, দূর্গাপুর স্টেশন থেকে ডিপিএল গেট পর্যন্ত। রানিগঞ্জ শহরের মধ্যে বাস পুজোর দিনগুলোতে চলতে দেওয়া হবে না। বাস কেবলমাত্র অশোক পেট্রল পাম্প পর্যন্ত যেতে দেওয়া হবে। একইসঙ্গে বাঁকুড়া মেজিয়া থেকে আসা বাসগুলিকে বল্লভপুর পর্যন্ত আসতে দেওয়া হবে। রানিগঞ্জ শহরে বিকেল ৪ টা থেকে ভোর ৪ টা পর্যন্ত ভারী যানবাহন চলাচল করতে দেওয়া হবে না। ভারী যানবাহন বিকাল ৪ টা থেকে রাত ২ টা পর্যন্ত আসানসোল শহরেও ঢুকতে দেওয়া হবে না। কুলটি ও বরাকর শহরে ভারী যানবাহন প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close