fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

২৫ টাকায় আলু কিনতে ভাঙড়ে লম্বা লাইন

ফিরোজ আহমেদ, ভাঙড়: প্রতিদিন একটু একটু করে তাপমাত্রা নামছে আর লাফিয়ে বাড়ছে আলু, পেঁয়াজের দাম। একধাপ পেরোলেই অর্ধ সেঞ্চুরি।মানে ৫ টাকা দাম বাড়লেই ৫০ টাকা কেজি হবে আলুর। সত্তরের নিচে কোথাও পেঁয়াজ নেই। কেউ কেউ আবার আশি টাকাও দর হাকাচ্ছে। এরকম পরিস্থিতে নাজেহাল সাধারণ মানুষ। অপরদিকে সরকারি ভাবে সুফল বাংলার স্টলে ২৫ টাকা কেজি দরে আলু কিনতে লম্বা লাইন ভাঙড়ে।

ভাঙড়ের পোলেরহাট, শোনপুর সব্জি বাজারে ২৫ টাকায় কেজি দরে আলু বিক্রি করছে ভাঙড় ভেজিটেবিল প্রডিউসার কোম্পানি লিমিটেড। সেই আলু কিনতেই ভোরের আলো ফোটার সাথে সাথেই ভিড় জমাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। বাড়ির পুরুষদের পাশাপাশি মহিলাদের ভিড়ও লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সকাল হলেই যারা হেঁসেলে ঢুকে পড়েন সেই মালতী, মৌসুমী, জাহানারার হেঁসেল ছেড়ে থলে হাতে আলুর লাইনে।কেন এমন অবস্থা? গাজীপুরের গৃহবধূ সন্ধ্যা দাস বলেন, ‘আমাদের এলাকার সমস্ত মুদিখানার দোকান,বাজারে ৪৪ থেকে ৪৫ টাকা দরে আলু বিক্রি হচ্ছে। একমাত্র এখানেই ২৫ টাকা করে পরিবার পিছু তিন কেজি করে আলু দিচ্ছে। তাই সব কাজ ছেড়ে আলুর লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে আছি।‘

ক্রেতাদের বক্তব্য, প্রতিদিন সকাল সাতটা থেকে দশটা পর্যন্ত আলু বিক্রি করা হলেও ভোর পাঁচটা থেকে লাইন পড়ছে সব্জি হাটে। বয়স্ক, কিশোরদের পাশাপাশি আলু কিনতে আসছেন মহিলারাও।সেই লাইনেই একরত্তি সন্তানকে নিয়ে দাঁড়িয়ে অনন্তুপুর গ্রামের গৃহবধূ আলেয়া বিবি। তিনি বলেন, ‘স্বামী জন মজুরের কাজ করে, না খাটলে খাওয়া হয়না। তাই কোলের সন্তানকে নিয়ে বাজারে চলে এসেছি।আমার সামনে অন্তুন চারশো মানুষ লাইনে দাড়িয়ে।কখন আলু পাব জানিনা।

কেন আলুর জন্য এই হাহাকার? ভাঙড় ভেজিটেবিল প্রডিউসার কোম্পানির চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বার খান বলেন, ‘আলু কেবল শীতের মরসুমে চাষ হয়।সারাবছর আমরা মজুত আলু খাই।গত বছর এ রাজ্যে ফলন কম হওয়ায় আমাদের মজুতের পরিমান কম।পাশাপাশি বাইরের রাজ্য থেকেও আলু আমদানি করা যাচ্ছে না দাম বেশি হওয়ায়।ফলে চাহিদার তুলনায় জোগান কম হওয়ায় আপনা আপনিই দাম বেড়ে যাচ্ছে।‘

আধিকারিকদের মতে নতুন আলু না ওঠা পর্যন্ত দাম কমার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তবে কারও কারও মতে ফড়ে এবং মজুতদাররা কৃত্রিম ভাবে অভাব সৃষ্টি করে আলুর দাম বাড়াচ্ছে। শুধু তাই নয় সরকার ২৫ টাকা কেজি দর নির্ধারণ করলেও যে যার মত চড়া দাম নিয়ে আলু বিক্রি করছেন।

Related Articles

Back to top button
Close