fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

কাটমানি আছে, গণতন্ত্র নেই! তৃণমূলকে কটাক্ষ তেজস্বীর… সোনার বাংলা গড়ার ডাক

রক্তিম দাশ, কলকাতা: একুশে বাংলায় যে বিজেপি সরকার গড়বে, তা দিনের আলোর মতোই পরিষ্কার। আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে যুগশঙ্খকে একথা বললেন, বিজেপির যুবমোর্চার সর্বভারতীয় সভাপতি তথা বেঙ্গালুরুর সাংসদ তেজস্বী সূর্য। তাঁর অভিযোগ, বাংলায় কাটমানি আছে, গণতন্ত্র নেই’। তিনি নিশ্চিত, রাষ্ট্রবাদী যুবকরাই সোনার বাংলা গড়বেন’।
যুবমোর্চার দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথমবার বাংলায় এলেন তেজস্বী। আর বাংলায় পা রেখে নবান্ন অভিযানে অংশ নিয়ে এই তরুণ সাংসদ দলীয় নেতা-কর্মীদের কাছে এখন আশা-ভরসার প্রতীক হয়ে উঠেছেন। বাংলা ছেড়ে যাওয়ার শুক্রবার তার বার্তা, ‘এখন থেকে বার বার আসবেন বাংলায়, পাশে থেকে পায়ে পা মিলিয়ে যুবদের নিয়ে উত্তাল আন্দোলনে তৃণমূল সরকারের ভীত নাড়িয়ে দিয়ে একুশে বিজেপিকে ক্ষমতায় আনবই।’

তেজস্বী সূর্য তৃণমূল সরকারকে একহাত নিয়ে বলেন,‘ সারা দেশে আজ সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত সরকার বাংলায়। সিন্ডিকেট ও কাটমানির সরকার চলছে। এখানে বেকারত্ব বাড়ছে। এই সরকারের দিন শেষ হয়ে গিয়েছে। বিজেপি সরকার বাংলায় আসছে তা নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে। এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। যাঁরা এই সরকার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সামিল হচ্ছেন, তাঁদের হয়রানি করা হচ্ছে। হত্যা করা হচ্ছে। গত দু’বছরে বাংলায় ১২০ বেশি বিজেপির নেতা-কর্মীকে রাজনৈতিক খুন হয়েছে তৃণমূলের দুষ্কৃতীদের হাতে। দিদি বাংলায় ফ্যাসিস্ট সরকার চালাচ্ছেন। তাই যুবমোর্চাকে ভয় পাচ্ছেন।’

নবান্ন অভিযানে তাঁর অভিজ্ঞতার কথা বলে, তেজস্বী বলেন, ‘আমাদের হাজারের বেশি কর্মী জখম হয়েছেন। গ্রেফতার করা হয়েছে ৫০০ জনকে। আগেরদিন রাত থেকে শহরের বিভিন্ন এলাকায় বাস আটকে দেওয়া হয়। এটা কি গণতন্ত্র? রাজনৈতিক বিক্ষোভের অধিকার নেই? গোটা হাওড়া ব্রিজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। আমি এখানে ভাষণবাজি করতে আসিনি। আমাদের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মাঠে নেমে লড়তে এসেছি। লাঠির আঘাত খেতে এসেছি। আমরা গণতান্ত্রিকভাবে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করেছিলাম। এটা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। এই অধিকারকে জবরদস্তি করে আটকানোর অধিকার কোনও সরকারের নেই।’

তেজস্বীর হুঁশিয়ারি, ‘আমরা সবাই মিলে এই স্বৈরাচারী সরকারকে বাংলার পবিত্র ভূমি থেকে উপড়ে ফেলব। আমি বাংলার যুবদের বলছি, তৃণমূলের বিরুদ্ধে এই গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বাংলার যুবকরা একা নন। ভারতের সব রাষ্ট্রবাদী যুবকরা আপনাদের সঙ্গে রয়েছেন। যুব মোর্চার দায়িত্ব পাওয়ার পর এই প্রথম বিক্ষোভে অংশ নিলাম। বাংলায় গণতন্ত্রকে বাঁচাতে হবে। এটা লড়াইয়ের সূচনা। যুব মোর্চাকে ভয় পেয়েছেন মমতা দিদি। তাই নবান্ন ২ দিনের জন্য বন্ধ করেছেন। এ ডর অচ্ছা হ্যায়।’

আরও পড়ুন:কাঁকসার শিবপুর-দেউলে বিপন্ন বনানীর সড়ক….. জঙ্গলে অবৈধ বালি বোঝাই লরি চলাচল বন্ধে কড়া বার্তা বনমন্ত্রীর

তিনি আরও বলেন,‘ আমাদের অ্যাজেন্ডা খুব স্পষ্ট। বাংলার হৃত গৌরবকে পুনঃস্থাপিত করা। আর তা বাংলায় ভারতীয় জনতা পার্টির সরকার তৈরি হলেই সম্ভব। যতক্ষণ না এই সরকার উৎখাত হবে আমাদের লাগাতার আন্দোলন চলবে।
এমন এক আর্থিক নীতিবাদী সরকার আনতে হবে যা বাংলাকে উপরের দিকে নিয়ে যাবে। সেই সরকারের নেতৃত্ব দেবে যুবরা। অন্ধকার সরিয়ে নতুন সুর্যের উদয় হবে। বাংলায় সরকার গঠন করবে বিজেপি। দেওয়াল লিখন স্পষ্ট, একুশে পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্টতা নিয়েই বাংলায় বিজেপি সরকারে আসবে’।

Related Articles

Back to top button
Close