fbpx
একনজরে আজকের যুগশঙ্খগুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

এই প্রথম রাজনৈতিক দলের জ্বর হতে দেখলাম’, বিরোধীদের ‘পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া’য় খোঁচা নমোর

নিজস্ব প্রতিনিধি: শুক্রবার টিকাকরণে রেকর্ড করেছে দেশ। যদিও বিরোধীদের কটাক্ষ, প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে রেকর্ড হল, এমনটা রোজ হয় না কেন! আর সেই বিষয়টি নিয়ে বিরোধীদের কটাক্ষ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। রেকর্ড গড়তেই ‘পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া’ হচ্ছে বিরোধীদের, এমনটাই বললেন তিনি। একদিনে আড়াই কোটি টিকাকরণ নিয়ে বিরোধীদের কটাক্ষের এমনভাবেই জবাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী। গোয়ার একশো শতাংশ বাসিন্দাই করোনা টিকার প্রথম ডোজ় পেয়েছেন। সেই উপলক্ষে শনিবার স্বাস্থ্যকর্মীদের সঙ্গে ভার্চুয়াল মাধ্যমে কথা বলছিলেন প্রধানমন্ত্রী। সেই বৈঠক চলাকালীন প্রধানমন্ত্রী কটাক্ষের সুরে প্রশ্ন করেন, “আমি শুনেছি যে অনেকেরই করোনা টিকা নেওয়ার পর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে। তবে দেশ টিকাকরণে রেকর্ড গড়তেই এই প্রথম আমি কোনও রাজনৈতিক দলের জ্বর আসতে দেখলাম। এর কী কোনও ব্যাখ্যা আছে?” প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নে বৈঠকে যোগ দেওয়া অন্যতম চিকিৎসক নীতিন ধূপদালে প্রথমে হেসে ফেললেও পরে জানান, কোনও ব্যক্তির টিকা নেওয়ার পর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে, তাঁর কী কী করা উচিত। উল্লেখ্য শুক্রবার রাত বারোটা নাগাদ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মনসুখ মান্ডবিয়া টুইট করে জানান টিকাকরণে রেকর্ড গড়েছে দেশ। এদিন টিকাকরণ আড়াই কোটি পেরিয়ে গিয়েছে। যদিও বিরোধীদের অভিযোগ, প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে রেকর্ড গড়ার জন্যই সরকার এতদিন টিকা আটকে রেখেছিল, যার ফলে বিভিন্ন রাজ্যে টিকা সঙ্কট দেখা দিয়েছিল। কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধীও রেকর্ড টিকাকরণ প্রসঙ্গে বলেছেন, “এই দিনটা যেন বারবার ফেরত আসে।”
আর রেকর্ড ভাঙা টিকাকরণের কৃতিত্ব চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “আমি দেশের সমস্ত চিকিৎসক, স্বাস্থ্য কর্মী ও প্রশাসনিক আধিকারিকদের ধন্যবাদ জানাতে চাই। আপনাদের প্রচেষ্টাতেই আমরা একদিনে আড়াই কোটি টিকাকরণের রেকর্ড গড়তে পেরেছি। অনেক শক্তিশালী ও সমৃদ্ধ দেশও এই কাজ করতে পারেনি। প্রতি ঘণ্টায় ১৫ লাখের বেশি টিকাকরণ হয়েছে, প্রতি মিনিটে ২৬ হাজার ও প্রতি সেকেন্ডে ৪২৫ জনের বেশি টিকা পেয়েছেন। এই জন্মদিনটিকে স্মরণীয় করে তুলেছে রেকর্ড টিকাকরণ।”
উল্লেখ্য, গোয়াই দেশের একমাত্র রাজ্য, যা টিকাকরণে রেকর্ড গড়তে পেরেছে। প্রত্যেক বাসিন্দা অন্তত একটি ডোজের টিকা পেয়েছেন। এই সাফল্যের খবর পেয়েই প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছিলেন ১৮ সেপ্টেম্বর তিনি গোয়ার চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের ধন্যবাদ জানাতে তাঁদের সঙ্গে কথা বলবেন। সেই সূত্রে এদিন প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বিশ্বের বৃহত্তম ও দ্রুততম টিকাকরণ কর্মসূচিতে বড় ভূমিকা পালন করেছে গোয়া। বিগত কয়েক মাস ধরে ভারী বৃ্ষ্টি, ঘূর্ণিঘড়, বন্যার বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রী প্রমোদ সাওয়ান্তের নেতৃত্বে লড়াই চালিয়েছে গোয়া এবং তাতে সাফল্যও পেয়েছে। ”
সমস্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি টিকাকরণ কর্মসূচি চলাকালীন তাঁরা কোনও সমস্যায় পড়েছিলেন কিনা, তাও জানতে চান প্রধানমন্ত্রী। কীভাবে সাধারণ মানুষকে টিকা নেওয়ার জন্য রাজি করানো হয়েছে, টিকা নেওয়ার সময় তাঁদের কী কী প্রশ্ন ছিল, টিকাকরণের পর বর্জ্যগুলির কী করা হল, ইত্যাদি বিষয় নিয়ে প্রশ্ন করেন প্রধানমন্ত্রী।

Related Articles

Back to top button
Close