fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

এবার লকডাউনে বাড়তি ছাড় দিল কেন্দ্র…

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: দীর্ঘ একমাসের বেশি সময়ে ধরে চলা লকডাউনকে খানিকটা শিথিল করল কেন্দ্রীয় সরকার। এবার থেকে অত্যাশ্যকীয় পণ্যের পাশাপাশি বাকি দ্রব্য বিক্রি করার জন্য দোকান খোলা যাবে, এক বিজ্ঞপ্তি জারি করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়েছে। শনিবার থেকে অপরিহার্য নয় এমন পণ্য বিক্রির দোকানগুলি পুনরায় কাজ শুরু করতে পারে। স্থানীয় সেলুন এবং পার্লারদের শনিবার থেকে দোকান খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে বড় বড় শপিংমল, মার্কেট কমপ্লেক্স, সিনেমা হলগুলি, জিম, সুইমিং পুল, পানশালা, অডিটোরিয়াম এবং মদের দোকান আগের মতোই বন্ধ থাকবে। শনিবার থেকেই এই নির্দেশ কার্যকর করার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

তবে যে সমস্ত এলাকায় করোনা সংক্রমণ সে ভাবে ছড়িয়ে পড়েনি, যে এলাকাগুলি হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত হয়নি, শুধুমাত্র সেখানেই এই নির্দেশ বলবত্‍ হবে। পাশাপাশি, এই নিয়ম হটস্পটের জন্য একেবারেই কার্যকর নয়। সেখানে যেমন লকডাউন ছিল তেমনই থাকবে। এর আগে গত ২০ এপ্রিল লকডাউনের বিধিনিষেধ খানিকটা শিথিল করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। ৩ এপ্রিলের পর আরও বেশ কিছু ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়ে পারে বলে জল্পনা চলছিল। তার মধ্যেই শুক্রবার গভীর রাতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে একটি নির্দেশিকা জারি করে ছোট ব্যবসায়ীদের লকডাউনের আওতা থেকে ছাড় দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়।

আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্কে এবছর বন্ধ থাকবে কামাখ্যার অম্বুবাচী মেলা, জারি নিষেধাজ্ঞা

জানা গিয়েছে, আবাসিক কমপ্লেক্স কিংবা বাজারের স্থানীয় দোকান এবং ছোট ব্যবসা আজ থেকে পুনরায় খোলা যেতে পারে। তবে মাস্কের যথাযথ ব্যবহারের সঙ্গে সামাজিক দূরত্বের নিয়মগুলি মানতে হবে। এছাড়াও, এই দোকানগুলিতে সর্বাধিক ৫০ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ করতে পারবে। তবে এই নিয়ম কেবল গ্রিন জোনের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। স্থানীয় সেলুন এবং পার্লারদের শনিবার থেকে দোকান খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে বড় দোকান, ব্র্যান্ডেড বিপণি ও মার্কেট প্লেস বন্ধ থাকবে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক জানিয়েছে, হটস্পট ছাড়া অন্য এলাকায় পুরসভার সীমানার মধ্যের বাজার ও দোকানগুলি খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এ ক্ষেত্রেও দোকানের সমস্ত কর্মচারীদের পরতে হবে মাস্ক-গ্লাভস। বিকিকিনির সময় বজায় রাখতে হবে সামাজিক দূরত্বতবে লকডাউনের নিয়ম মানতে হবে , না হলে এই নিয়ম যে কোনও সময় তুলে নেওয়া হতে পারে। তবে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে ছাড় ঘোষণা করা হলেও, এই মুহূর্তে দোকান-বাজার খোলার পক্ষপাতী নয় একাধিক রাজ্য, যার মধ্যে অন্যতম হল দিল্লি এবং অসম। এ দিন পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে দেখার পরই এই সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে অরবিন্দ কেজরীবালের সরকার। অসম সরকার সোমবার এনিয়ে বৈঠক করবে।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close