fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণবাংলাদেশহেডলাইন

অধ্যাদেশে রাষ্ট্রপতির সই, বাংলাদেশে এখন ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদন্ড

ধর্ষণ যারা করে, তারা পশু: শেখ হাসিনা

যুগশঙ্খ প্রতিবেদন, ঢাকা: ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ডের বিধান রেখে আইন সংশোধনের অধ্যাদেশে সই করেছেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। মঙ্গলবার থেকে এই আইন কার্যকর হয়েছে।

বাংলাদেশের আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রকের লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ থেকে অধ্যাদেশটি জারি করা হয়।

বাংলাদেশে সম্প্রতি ধর্ষণের ক্রমবর্ধমান ঘটনার বিরুদ্ধে ব্যাপক প্রতিবাদের পরিপ্রেক্ষিতে গত সোমবার ঘৃণ্য এ অপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদন্ডের বিধান রেখে এ সংক্রান্ত আইনের (নারী ও শিশু নির্যাতন দমন) একটি সংশোধনী প্রস্তাব অনুমোদন করে মন্ত্রিসভা।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০০ এর ৯ (১) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ধর্ষণের শাস্তি ছিল যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। গত সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষিঠত মন্ত্রিসভার বৈঠকে আইন সংশোধন করে অধ্যাদেশ আকারে জারির জন্য এর খসড়ার নীতিগত ও চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়।

এদিকে আইনটি সংশোধনের পর মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ধর্ষকের ‘পাশবিকতা’ রুখতেই তার সরকার ধর্ষণ ও নির্যাতন আইন সংশোধন করে শাস্তির মাত্রা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, ধর্ষণ একটা…মানে…আমি বলব-একটা মানুষ পশু হয়ে যায়। সেই জন্যই তাদের মধ্যে এই পাশবিকতা। তার ফলে আজকে আমাদের মেয়েরা ক্ষতিগ্রস্ত। সেই জন্য আমরা এ আইনটি সংশোধন করি।

তিনি বলেন, ‘ধর্ষণ করলে সেখানে যাবজ্জীবনের সঙ্গে মৃত্যুদ- দিয়ে ইতিমধ্যে আমরা ক্যাবিনেটে সেই আইন পাস করে দিয়েছি। যেহেতু পার্লামেন্ট সেশনে নেই, আমরা এটি অধ্যাদেশ জারি করে দিচ্ছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, যে কোনো একটা সমস্যা দেখা দিলে সেটি মোকাবেলা করা এবং সেটিকে দূর করা- এটিই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

Related Articles

Back to top button
Close