fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ফেরিঘাট পরিদর্শনে এলেন নবান্নের তিন প্রতিনিধি দল

মিলন পণ্ডা, মহিষাদল (পূর্ব মেদিনীপুর): করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে গত প্রায় আড়াই মাস ধরে বন্ধ রয়েছে গেঁওখালি- নুরপুর, গেঁওখালি- গাদিয়াড়া রায়চক- কুঁকড়াহাটি ফেরি সার্ভিস। এরপর চলতি মাসের প্রথম থেকে ফেরি চলাচলের অনুমতি দিয়ে ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু কাল হয়ে দাঁড়ায় ঘূর্ণিঝড় আমফান নামক ঘূর্ণিঝড়। এর প্রভাবে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার বেশ কয়েকটি ফেরিঘাট একেবারে নড়বড়ে হয়ে পড়ে। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ পাওয়ার পর যদিও একদিন ফেরি চলাচল চালু হয়েছিল। যাএীদের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে ফেরিঘাটের অবস্থা নড়বড়ে হওয়ার কারণে ফের ফেরি চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় প্রশাসন।

আরও পড়ুন: করোনা মুক্ত থাকতে পারল না দমন দিউ, ২ জন আক্রান্তের খোঁজ মিললো

এরপর বুধবার সকালে ফেরিঘাট পরিদর্শনে আসেন নবান্নের তিন সদস্যদের প্রতিনিধি দল। বুধবার দুপুরে গেঁওখালি ফেরিঘাট পরিদর্শন করতে আসেন প্রতিনিধি দলের কুন্দন চান্ডা, অরুণ দে ও মানবেন্দ্র ভট্টাচার্য। এদিন নবান্নের প্রতিনিধি ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন আর টি ও সজল অধিকারী, মহিষাদলের বিডিও জয়ন্ত দে, মহিষাদল পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শিউলি দাস, সহ- সভাপতি তিলক কুমার চক্রবর্তী সহ অন্যান্যরা। পরিদর্শনে আসা নবান্নের তিন প্রতিনিধি দ্রুত সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন।

ফেরিঘাটের আধিকারীক সজল অধিকারী বলেন, প্রতিনিধি দল ফেরিঘাটের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে কয়েকদিনের মধ্যে একটি রিপোর্ট জমা করবেন। সেই রিপোর্ট পাওয়ার পর ফেরি সার্ভিস কবে থেকে চালু করা হবে। আশা করা যায় গেঁওখালী – নুরপুর ফেরি সার্ভিস আগামী সপ্তাহের প্রথমের দিক থেকে খোলা হতে পারে।

Related Articles

Back to top button
Close