fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

TikTok, Helo-সহ ৫৯টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ, ঘোষণা কেন্দ্রের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ভারত-চিন সীমান্ত সংঘাত আবহে এবার চিনা সংস্থার তৈরি একাধিক এক নিষিদ্ধ করল কেন্দ্র। জাতীয় সুরক্ষার কারণ দেখিয়ে চিনা অ্যাপ ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। চিনের তৈরি ৫৯ টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করার ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। নিষিদ্ধ করা হয়েছে টিকটক, শেয়ারইট, ইউসি ব্রাউজার। তালিকায় হ্যালো, ভিমেট। নিষিদ্ধ করা হল ক্লিন মাস্টার, এমআই ভিডিও কল, জেন্ডার, ক্যাম স্ক্যানার, লাইকি, নিউজ ডগ নিষিদ্ধ করা হচ্ছে। একাধিক অ্যাপস নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে কেন্দ্র।

কেন্দ্রের অভিযোগ, এই ৫৯টি অ্যাপ ভারতের ব্যবহারকারীদের তথ্য চুরি করছে। এমনকী, ভারতের সার্বভৌমত্ব, সৌভ্রাতৃত্বকেও চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলছে। ভারতের প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তাকেও নষ্ট করার চেষ্টা করছে এই অ্যাপগুলি। তাই এই ৫৯টি অ্যাপের উপর নিষেধাজ্ঞা চাপাল কেন্দ্র সরকার। চিনের সঙ্গে বাড়তে থাকা উত্তেজনার মধ্যে এই পদক্ষেপ নিসন্দেহে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। তাঁদের কথা. এটা কেন্দ্রের ডিজিটাল স্ট্রাইক। এই নির্দেশিকার জেরে চিনের অর্থনীতি ব্যপক ধাক্কা খাবে। এক কথায়, বেজিংকে ভাতে মারতে প্রস্তুত কেন্দ্র সরকার।

সীমান্ত উত্তেজনার আবহে চিনের বিরুদ্ধে বড়সড় পদক্ষেপের পথে হাঁটল কেন্দ্র সরকার। টিকটক, শেয়ারইট, ইউসি ব্রাউজারের মতো জনপ্রিয় চিনা অ্য়াপ নিষিদ্ধ করল ভারত সরকার। টিকটক, শেয়ারইট, ইউসি ব্রাউজার, লাইকি, ইউচ্য়াট, বিগো লাইভ-সহ মোট ৫৯টি চিনা অ্য়াপ নিষিদ্ধ করল তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রক।টিকটক, শেয়ারইট, ইউসি ব্রাউজার, লাইকি, ইউচ্য়াট, বিগো লাইভ ছাড়াও নিষিদ্ধ অ্য়াপের তালিকায় রয়েছে ক্লাব ফ্য়াক্টরি, এমআই কমিউনিটি, ভাইরাস ক্লিনার, এমআই ভিডিও কল-শাওমি, হেলো, বিউটি প্লাস, সুইট সেলফি, ইউসি নিউজ, উই মিট, ডিইউ রেকর্ডার, মোবাইল লেজেন্ডস, ওন্ডার ক্যামেরা।

আরও পড়ুন: আজ বিকেল ৪টে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী

এই অ্যাপগুলির বিরুদ্ধে সাইবার বিশেষজ্ঞ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফ থেকে নানা অভিযোগ করা হচ্ছি।  তাঁদের থেকে প্রাপ্ত সেই তথ্যের ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হল। তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের তরফে এ ব্যাপারে জানানো হয়েছে, ওই অ্যাপগুলি দেশের সার্বভৌমত্ব, অখণ্ডতা, দেশের সুরক্ষার জন্য ক্ষতিকারক। সেকারণেই ওই অ্য়াপগুলিকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৬৯এ ধারায় অ্য়াপগুলি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, ১৩০ কোটি ভারতবাসীর তথ্য সুরক্ষিত রাখার প্রশ্নে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস প্ল্য়াটফর্মে মোবাইল অ্যাপকে অপব্যবহার করে গ্রাহকদের তথ্য চুরি করা হচ্ছে বলে বেশ কিছু অভিযোগ জমা পড়েছিল তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকে। এরপরই এ ব্য়াপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানা যাচ্ছে। লাদাখে সীমান্ত সংঘাতের আবহে চিন  অ্যাপ নিষিদ্ধ করার মতো সিদ্ধান্ত উল্লেখযোগ্য বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহলের একাংশ। তবে কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের পিছনে অন্য কারণ দেখছে ওয়াকিবহাল মহল।

Related Articles

Back to top button
Close