fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ফের প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল মালদায়

মিল্টন পাল, মালদা: ফের প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল। মালদার চাঁচোল ১ নম্বর ব্লক অফিস ঘেরাও করে বিক্ষোভ দলের একাংশের। অঞ্চল কমিটি,বুথ কমিটি গঠন না করা অর্থের বিনিময় কমিটিতে স্থান দেওয়া এবং ব্লকের অন্যান্য নেতৃত্বকে গুরুত্ব না দেওয়া সহ একাধিক অভিযোগে বিক্ষোভ। ভিত্তিহীন অভিযোগ দাবি ব্লক সভাপতি সচ্চিদানন্দ চক্রবর্তীর। ব্লক সভাপতির পাশে দাঁড়িয়েছেন জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। যদিও পুরো বিষয়টিকে কটাক্ষ করেছে জেলা বিজেপি।

শুক্রবার রাতে দলীয় অফিসে সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন এক দল তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী। তাদের অভিযোগ অর্থের বিনিময়ে অঞ্চল কমিটি তৈরির চক্রান্ত করছেন ব্লক সভাপতি। ব্লক কমিটির অন্যান্য নেতৃত্বকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না বলেও তাদের অভিযোগ। দুদিন ধরে তারা দলীয় কার্যালয়ে এলেও দেখা পাননি ব্লক সভাপতির। তাই বিক্ষোভের সামিল হয়েছেন তারা। এক তৃণমূল কর্মী মহন্মদ ফিরোজ জানান,সামনেই বিধানসভা ভোট রয়েছে। ৩০ অক্টোবরের মধ্যে কমিটি গঠন করার কথা থাকলেও এখনো সেই কমিটি গঠন হয়নি। ফলে দলীয় কাজ করতে এলাকায় অসুবিধা হচ্ছে। কর্মীরা তাদের উৎসাহ হারাচ্ছেন।

ব্লক সভাপতি সচ্চিদানন্দ চক্রবর্তী অসুস্থতার কথা বলে এই ধরনের কাজ করছেন। তাই বাধ্য হয়ে এদিন আমরা বিক্ষোভ করেছি। বিষয়টি আমরা জেলা নেতৃত্বকে জানিয়েছি। যদিও এই বিক্ষোভের ফলে দলেরই ক্ষতি হচ্ছে বলে দাবি ব্লক সভাপতি সচ্চিদানন্দ চক্রবর্তীর। তিনি বলেন, আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ ভিত্তিহীন। তবে এই বিষয় গুলি নিয়ে দলে আলোচনা করবো। ভ্রান্ত মিথ্যা কথা বলে দলের ক্ষতি করার চেষ্টা করছে। এখানে টাকা পয়সার কোন বিষয় নেই। কেউ যদি টাকা নিয়ে থাকে তাহলে আমরা দলীয় ভাবে ব্যবস্থা নেবো। এরা দলের ক্ষতি ছাড়া কিছু করছে না।

যদিও এই বিক্ষোভকে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি জেলা বিজেপির সহ সভাপতি অজয় গঙ্গোপাধ্যায়।তিনি বলেন,গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব আর তৃণমূল সর্মাথক শব্দ। তাই যত ২০২১ এগিয়ে আসবে ততই তাদের কোন্দল প্রকাশ্যে আসবে। তাদের শেষের শুরু। শুধু পিন আর কাঁটা গুলি পুঁতে দেওয়ার অপেক্ষায় আছে তৃণমূল যারা করে। উন্নয়নের অগ্রগতি তারাই আটকে দিয়েছে। মালদা জেলাতেও একই কাজ চলছে। গোষ্ঠী দন্দ তৃণমূলের বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছে যাবে এটা আমরা মনে করছি।

জেলা তৃণমূলের মুখোপাত্র শুভময় বসু বলেন,উৎসবের মরশুমে কোন রাজনৈতিক কার্যকম নেওয়া হয় না। যারা এই কাজ করছেন তারা মূর্খের স্বর্গে বাস করছেন। কারন অঞ্চল ও ব্লক কমিটি গঠনের জন্য নিদিৃষ্ট নির্দেশিকা রয়েছে। সেই নির্দেশিকা অনুযায়ী ব্লক সভাপতি পাওয়ারফুল নন।সবাই আলোচনার মাধ্যমে কমিটির তালিকা দেবে। সুতুরাং তার একটা প্রসেস রয়েছে। ফলে বিক্ষোভ দেখানো বুদ্ধিমানের কাজ নয়। যারা এটা করছে ভুল করছে। দল এব্যাপারে তাদেরকে সর্তক করবে।

 

Related Articles

Back to top button
Close