fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

তৃণমূল নেতাকে থানায় নিয়ে গিয়ে মারধরের অভিযোগ, প্রতিবাদে বিক্ষোভ কর্মীদের

নিজস্ব সংবাদদাতা, দিনহাটা: মদ্যপ অবস্থায় তৃণমূল কংগ্রেসের বুড়িরহাট এক অঞ্চল কোর কমিটির সদস্য সঞ্জীব বর্মন কে থানায় নিয়ে এসে মারধরের অভিযোগ উঠল পুলিশের বিরুদ্ধে। তৃণমূল নেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার দিনহাটা থানার সামনে বিক্ষোভ দেখানোর পাশাপাশি ডেপুটেশন দিয়ে অভিযুক্তর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানান রাজ্যের শাসক দলের কর্মী সমর্থকরা।

তৃণমূল শ্রমিক সংগঠনের কোচবিহার জেলা সহ-সভাপতি বিশু ধর , দলের দিনহাটা বিধানসভা কার্যকরী কমিটির আহ্বায়ক শুকারুরকুঠি গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান বিষ্ণু সরকার, বুড়িরহাট অঞ্চল সভাপতি আব্দুল সাত্তার, কার্যকরী সভাপতি খগেশ্বর বর্মন প্রমুখের নেতৃত্বে এই বিক্ষোভ আন্দোলন সংগঠিত হয়। রাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী যখন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঠিক তখন দিনহাটায় পুলিশের বিরুদ্ধে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের বিক্ষোভ আন্দোলনকে ঘিরে ব্যাপক আলোড়ন ছড়িয়ে পড়ে।

এদিকে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, তৃণমূলের ওই নেতা মদ্যপ অবস্থায় বাবুপাড়া এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি করছিল।সে সময় কর্তব্যরত পুলিশ কর্মী তাকে থানায় নিয়ে আসে। রাতে তাকে বন্ডে ছেড়ে দেওয়া হয়।

করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় শুরু হয়েছে লকডাউন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কথা বারে বারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রচার করা হচ্ছে। অথচ এদিন দিনহাটা থানার সামনে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের বিক্ষোভ চলাকালে কার্যত সামাজিক দূরত্ব ছিল না বলেই অভিযোগ।

তবে তৃণমূল নেতৃত্ব অবশ্য বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এদিন বিক্ষোভ আন্দোলন সংগঠিত হয়।লকডাউনের এই সময়কালে রাজনৈতিক নানা কর্মসূচি যখন বন্ধ রয়েছে তখন রাজ্যের শাসকদলের এই কর্মসূচিতে সামাজিক দূরত্ব না থাকায় কঠিন এই সময়ে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেন বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির অনেকে।

বিজেপি কোচবিহার জেলা সম্পাদক সুদেব কর্মকার বলেন, সব পুলিশ খারাপ নয়। পুলিশ মদ্যপ অবস্থায় তৃণমূল নেতাকে গ্রেফতার করে নিয়ে আসায় শাসক দলের নেতাকর্মীরা পুলিশের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামছেন, এটা তৃণমূলের লজ্জা। পাশাপাশি তিনি বলেন, বিরোধীরা রাজনৈতিক কর্মসূচির অনুমতি চাইলে তা বাতিল করে দেওয়া হচ্ছে অথচ তৃণমূল সরকারি নির্দেশিকা কে না মেনে স্বাস্থ্য বিধি লংঘন করে থানায় বিক্ষোভ করছে ওই দলের কর্মী সমর্থকরা। তৃণমূল কিভাবে রাজ্যে ক্ষমতায় টিকে রয়েছে তা মানুষের কাছে অজানা নয়।

ফরওয়ার্ড ব্লক নেতা আবদুর রউফ, এফআইয়ের রাজ্য কমিটির সদস্য শুভ্রালোক দাস বলেন, করোনা মোকাবেলায় ব্যর্থ রাজ্য সরকার। তাই ওই দলের নেতারা মদ্যপ অবস্থায় ঘোরাঘুরি করে চলছে। পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা নিলে তাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে পুলিশের উর্দি কে অপমানিত করছে রাজ্যের শাসক দলের কর্মী সমর্থক রা।

তৃণমূল নেতা বিশু ধর বলেন , বুড়িরহাট এলাকার তৃণমূল নেতা সঞ্জীব বর্মন কে বুধবার রাতে পুলিশ দিনহাটা শহরের বাবু পাড়া এলাকা থেকে মিথ্যা অভিযোগ তুলে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে এসে মারধর করে। পুলিশের এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে তিন দিনের মধ্যে অভিযুক্ত ওই পুলিশ কর্মীর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ না নেওয়া হলে তাকে সামাজিক বয়কট করা হবে। এছাড়াও তিনি বলেন দিনহাটা থানার এসআই তাপস দাসের বিরুদ্ধে আরো অনেক অভিযোগ রয়েছে।প্রয়োজন হয় সেগুলো রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কে অবগত করা হবে।

দিনহাটা মহকুমা পুলিশ আধিকারিক মানবেন্দ্র দাস বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

Related Articles

Back to top button
Close