fbpx
হেডলাইন

শিক্ষকদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে, পুড়ল প্যান্ডেলের একাংশ

মৃন্ময় বসাক, হেমতাবাদঃ শিক্ষক দিবসের অনুষ্ঠানকে ঘিরে প্রকাশ্যে এল তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, পুড়ল প্যান্ডেলের একাংশ। ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিতর্ক তৈরি হয়েছে তৃণমূলের অন্দরেই। রবিবার দুপরে হেমতাবাদ ব্লকের বাঙ্গালবাড়ি হাট সংলগ্ন এলাকায় তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির ব্যানারে শিক্ষকদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। যেখানে অতিথি হিসেবে দলের জেলা সভাপতি কানাইয়া লাল আগরওয়ালা, জেলা যুব সভাপতি গৌতম পাল , হেমতাবাদ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শেখর রায় , বাঙ্গালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান আনোয়ারা বেগম উপস্থিত থাকলেও অনুষ্ঠানে আমন্ত্রন পেলেন না ব্লক তৃণমূল সভাপতি প্রফুল্ল বর্মণ, তৃণমূল নেতা মৃত্যুঞ্জয় দত্ত, অঞ্চল সভাপতি নূর কালাম, ওই এলাকা থেকে নির্বাচিত জেলা পরিষদের সভাধিপতি কবিতা বর্মন।

পাশাপাশি, শনিবার রাতে অনুষ্ঠান মঞ্চের একাংশ পুড়িয়ে দিয়েছে ক্রুদ্ধ তৃণমূল নেতৃত্ব বলে অভিযোগ তোলে অনুষ্ঠান আয়োজক তৃণমূল নেতৃত্ব। এই বিষয় নিয়ে হেমতাবাদে তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠক করে অনুষ্ঠান আয়োজক কমিটির বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দলের ব্লক সভাপতি প্রফুল্ল বর্মন। বাঙালবাড়ি অঞ্চল সভাপতি নূর কালাম, প্রাক্তন ব্লক সভাপতি মৃত্যুঞ্জয় দত্তকে পাশে বসিয়ে সাংবাদিক বৈঠকে প্রফুল্ল বর্মন বলেন, তৃণমূলের উদ্যোগে অনুষ্ঠান করা হয়েছে ভালো। তবে এই অনুষ্ঠান কারা করল তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। কারণ আমি দলের ব্লক সভাপতি আমাকেই জানানো হয়নি, বাঙ্গালবাড়ি অঞ্চলের সভাপতিকে জানানো হয়নি, জেলা পরিষদের সভাধিপতি ওই এলাকা থেকে নির্বাচিত হলেও তাকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। অনুষ্ঠানে জেলা সভাপতি এসেছেন ভালো ,কিন্ত স্থানীয় নেতৃত্ব জানেন না। এই ভাবে দলের অনুষ্ঠান হয়?

সামনে নির্বাচন তার আগে যদি এমন চলতে থাকে তাহলে দলের ক্ষতি। তবে তৃণমূলের অনুষ্ঠানের প্যান্ডের পুড়ানোর বিষয়টি জানেননা বলে জানিয়েছে প্রফুল্ল বর্মন।

এই বিষয় নিয়ে তৃণমূলের উত্তর দিনাজপুর জেলা সভাপতি কানাইয়ালাল আগারোয়াল বলেন, গোষ্টী দ্বন্দের কোনো বিষয় নেই, যে মান অভিমানের ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে তা দলের অন্দরের বিষয় আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করে নেওয়া হবে। অনুষ্ঠানের প্যান্ডের কারা পুড়িয়েছে সেটিও দলের পক্ষথেকে দেখা হচ্ছে। বিজেপির ২২ নং হেমতাবাদ মন্ডল কমিটির সভাপতি প্রশান্ত কুমার ভৌমিক বলেন, তৃণমূল নিজেদের মধ্যে লড়াই করতেই ব্যস্ত। হেমতাবাদে তৃণমূল নেতৃত্ব এখন দলে পদ
দখলের জন্য এইসব করছে। মানুষ সব জানে। আগামী ভোটে জনতার কাছথেকে তৃণমূল
এর উত্তর পেয়ে যাবে।

 

Related Articles

Back to top button
Close