fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

পেট্রল ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে সোশাল মিডিয়ায় সরব পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ অন্যান্যরা

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: ‘পেট্রল ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি নয় দিবালোকে লুঠ চলছে।’ তোপ দাগল সর্ব ভারতীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। মঙ্গলবার সোশাল মিডিয়ায় পেট্রল ও ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিলেন তৃণমূল নেতৃত্ব। এদিন তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় দীনেশ ত্রিবেদী ডেরেক ও ব্রায়েন চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য একাধিক তৃণমূল নেতৃত্ব সোশ্যাল মিডিয়ায় পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ জানায়। এই নিয়ে ১৭ বার পেট্রোল-ডিজেলের দাম বাড়ায় কেন্দ্র।বর্তমানে বিশ্বব্যাপী তেলের বাজারে মূল্যসূচক যখন নিম্নমুখী সেসময় ভারতবর্ষে লাগাতার পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির হচ্ছে। বর্তমানে ভারতবর্ষে প্রায় ৮০ টাকা লিটার এর কাছাকাছি পৌছে গিয়েছে এর দাম। আর তা নিয়েই একে একে এদিন করে দিলেন নিজের সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্টের মাধ্যমে।

তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় এদিন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পরিকল্পিত ভাবে দেশের মানুষের ওপর নতুন করে দুর্যোগ নামিয়ে এনেছেন। ২০১৪ সালে ভারতবর্ষে সর্বোচ্চ পেট্রোল ও ডিজেলের ডিউটি বেড়ে ছিল ২৪৭ দশমিক ৮৯ শতাংশ। কিন্তু বর্তমানের নরেন্দ্র মোদি সরকার সবকিছুকে ছাপিয়ে ৭৯৪ দশমিক ১০ শতাংশ পেট্রোল-ডিজেলের দাম বাড়িয়েছে।’

প্রাক্তন রেলমন্ত্রী ও তৃণমূল সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদী, ‘কোভিদ 19 এর সংকটময় মুহূর্তে পেট্রোল-ডিজেলের বর্ধিত ডিউটি চার্জ সাধারণ মানুষের ওপর চাপিয়ে দেওয়া অভুত পুর্ব বিষয়। যা সাধারণ মানুষের থেকে জোর করে চাঁদা তোলার সমান।’

রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন সাংসদ আভিষেক বন্দোপাধ্যায় টুইটারের পোস্টকে পুনরায় ট্যুইট করে বলেন, ‘দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষ অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের মোকাবিলা করছে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সাধারণ মানুষের কাছ থেকে অপরিশোধিত তেলের কম মূল্যের বেনিফিট থেকে সাধারণ মানুষকে বঞ্চিত করছেন। এটি অত্যন্ত লজ্জাজনক বিষয়!

রাজ্যের স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য এ বিষয়ে বলেন, ‘মোদি জি আপনার দেখানো পথ আমাদের ভীত করে তুলছে। কর্নার ব্যর্থতা ইন্দচিনা সংঘাত কার্যত হার মেনে নেওয়া এবং তারপরেই পেট্রোল ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি করা চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে ফেলে দিচ্ছে সাধারণ মানুষের জীবনকে।’
অন্যদিকে রাজ্যের বিদ্যুৎ মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘অতিমারি ও খাদ্য সঙ্কট নিয়ে মানুষ প্রতিদিন যখন বাঁচার লড়াই চালা

Related Articles

Back to top button
Close