fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আসানসোলে নারী পাচার চক্র ও ড্রাগের কারবার, দ্বন্দে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব   

শুভেন্দু   বন্দ্যেপাধ্যায়, আসানসোল: আসানসোলের রেলপার এলাকায় অবাধে চলছে নারী পাচার চক্র ও ড্রাগের কারবার। এই নিয়ে দিন কয়েক আগে সরব হয়েছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের আসানসোল উত্তর বিধানসভার ব্লক সভাপতি উৎপল সিনহা। আর এই কথা বলার জন্য দলেরই ব্লক সভাপতিকে সরাসরি আক্রমন করলেন আসানসোল পুরনিগমের বোরো চেয়ারম্যান রেলপারের ২৮ নং ওয়ার্ডে তৃনমুল কংগ্রেসের কাউন্সিলর গোলাম সরবর। শাসক দলের এই কাউন্সিলর বর্তমানে পশ্চিম বর্ধমান জেলা তৃনমুল কংগ্রেসের জেলার সাধারণ সম্পাদক ও দলের মাইনেরিটি সেলের জেলা চেয়ারম্যান। বোরো চেয়ারম্যানের নাম সরাসরি না বললেও ব্লক সভাপতি পাল্টা আক্রমণ করে বলেছেন, এইসব কারবার বন্ধ হয়ে গেলে যে বা যাদের কাটমানি পাওয়া বন্ধ হয়ে যাবে, তারা আমার মুখ বন্ধ করার চেষ্টা করছে।

প্রসঙ্গতঃ, আসানসোল উত্তর বিধানসভার বিধায়ক হলেন রাজ্যের শ্রম ও আইন মন্ত্রী মলয় ঘটক। ব্লক সভাপতি হওয়ার সূত্রে উৎপল সিনহা মন্ত্রীর খুবই ঘনিষ্ঠ। স্বাভাবিকভাবেই দুই নেতার বাকযুদ্ধ ও আক্রমনে কিছুটা হলেও শাসক দলের জেলা নেতৃত্ব চরম অস্বস্তিতে পড়েছে।
শুক্রবার রাতে আসানসোলের রেলপার এলাকায় উর্দু কলেজ তৈরীর দাবি সান ফ্লাওয়ার ওয়েলফেয়ার কমিটির উদ্যোগে সই সংগ্রহ অভিযান ও শিক্ষা সচেতনতা নিয়ে এক সভার আয়োজন করা হয়। সেই সভায় আসানসোল পুরনিগমের আরো দুই কাউন্সিলর ওয়াসিমুল হক ও হাজি নাসিম আনসারির সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন গোলাম সরবর।
সেই সভাতেই প্রকাশ্যে রীতিমতো ক্ষুব্ধ হয়ে গোলাম সরবর বলেন, এখানকার দলের ব্লক সভাপতি উৎপল সিনহা বলেছেন, এই রেলপার এলাকায় নারী পাচার চক্র ও ড্রাগের কারবার চলে। যা এলাকার বাসিন্দা হিসাবে সবার অপমান। ব্লক সভাপতি এলাকার মা ও বোনেদের অপমান করেছেন। তা তিনি করতে পারেন না। ব্লক সভাপতির জানা উচিত, এই এলাকার বিধায়ক ও রাজ্যের মন্ত্রী কে? রাজ্যে কার শাসন চলছে। যদি এইসব চলেও, তাহলে তা বন্ধ করার দায়িত্ব কার? আমার অবাক এলাকার বাসিন্দারা ঐ ব্লক সভাপতির কাছে গিয়ে তাকে পূষ্পস্তবক দিয়ে সম্মান জানান। সেই ছবি সোশাল মিডিয়ায় দেওয়া হয়।

পরের দিন সংবাদপত্রেও ছাপা হয়। গোলাম সরবর আরো বলেন, ব্লক সভাপতি বলেছেন ২০২১ সালে এইসব বন্ধ করে দেবো। তাতে যদি আমার প্রাণ যায় তো যাবে। আমার প্রশ্ন, ব্লক সভাপতি এখনই এইসব বন্ধ করছেন না কেন? তাহলে তিনি তো সব জানেন, কারা এইসব চালাচ্ছে। তিনি কি তাদের কাছ থেকে ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত এইসব কারবার চালানোর জন্য এ্যাডভান্স বা অগ্রিম নিয়েছেন। গোলাম সরবর মনে করেন, এই এলাকার ছেলেমেয়েদের উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত না করতে না পারলে, এই এলাকার পরিবেশ পালটাবে না। তালিম (শিক্ষা) অপরাধ কমাতে সাহায্য করে। তারজন্যই আমাদের এই অনুষ্ঠান।
গোলাম সরবরের অভিযোগ বা বক্তব্যের পাল্টা আক্রমণ করেছেন ব্লক সভাপতি উৎপল সিনহা
এদিন তিনি বলেন, আমি কোন ভুল কথা বলিনি। কিছু লোক এই রেলপার এলাকার গরীব মানুষদের দিয়ে এইসব অপরাধ করাচ্ছে। সবাই সবকিছু জানে। কিন্তু কেউ বন্ধ করার ব্যবস্থা করছে না। আমি তা নিয়ে সরব হয়েছি। পুলিশ ও প্রশাসন এইসব কিছু বন্ধ করার চেষ্টা করছে। দলও প্রচার চালাচ্ছে। তিনি অবশ্য কারোর কোন নাম না করে বলেন, এইসব বন্ধ হয়ে গেলে অনেকেরই কাটমানি পাওয়া বন্ধ হয়ে যাবে। তারাই আমার মুখ বন্ধ করার চেষ্টা করছে। কিন্তু তা আমি করবো না। এলাকার বাসিন্দারাও চান যে, এইসব বন্ধ হোক।
এই প্রসঙ্গে এলাকার বিধায়ক হিসাবে রাজ্যের মন্ত্রী মলয় ঘটকের প্রতিক্রিয়া নেওয়ার জন্য যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু তাকে পাওয়া যায়নি।

Related Articles

Back to top button
Close