fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

হাথরসের ঘটনায় কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে নিশানা তৃণমূলের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: হাথরসের ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া জানাল তৃণমূল কংগ্রেস। তারা কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে নিশানা করল। এর আগে দেশের অন্যান্য রাজ্যগুলি থেকে নিন্দা ও সমালোচনার ঝড় ওঠে। তাদের কে সমর্থন করে বুধবার আসরে নামল তৃণমূল। এদিন সকাল তৃণমূলের তরফে সোশাল মিডিয়ায় নিন্দার ঝড় আছড়ে পরে। শুধু কেন্দ্রের বিজেপি সরকার নয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকেও তারা বাক্যবাণে বিদ্ধ করেন। তৃণমূলের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘দু দিনে পরপর দুটি অমনবিক অপরাধ সংগঠিত হল। এই ঘটনা স্পষ্ট করে দিয়েছে দেশের দলিত ও মহিলাদের সুরক্ষা ব্যবস্থা, যা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শাসনকালে হাস্যসকর হয়ে পড়েছে। কেন্দ্রের বিজেপি সরকার এখন দেশের দলিত সম্প্রদায়ের জন্য বড় ভয়ের বিষয়।’

অন্য দিকে উত্তরপ্রদেশের হাথরসে কিশোরীর মৃত্যু নিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া জানালেন যুব সভাপতি তথা সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘হাথরসে নরেন্দ্র মােদীর রাজত্বে অবর্ণনীয় অপরাধ ঘটল । অথচ, তিনি মুখ বন্ধ করে আছেন। টানা ১৫ দিন যন্ত্রনায় লড়াই করার পর মেয়েটি মারা গেল। উত্তরপ্রদেশ পুলিশ তার মরদেহে সম্পূর্ণ অশ্রদ্ধা দেখাল। এটা অমনবিকতা।’
ধর্ষিতা ও মৃত দলিত কিশােরীর দেহ লুকিয়ে রাতের অন্ধকারে দাহ করা হয়েছে বলে অভিযােগ উঠেছে। ১৯ বছরের ওই কিশােরীকে দিন পনেরাে আগে গণধর্ষণ করা হয়। তাকে দিল্লির এইমসে আনা হয়েছিল। কিন্তু মঙ্গলবার ভােরে তার মৃত্যু হয়। একটি সর্বভারতীয় টিভি চ্যানেলের ভিডিও ফুটেজ দেখিয়ে সোশাল মিডিয়াতে অভিষেক এই দাবি করেন। যেখানে মৃত মহিলার বাড়ির লােকেরা জেলাশাসকের কাছে অনুরােধ করছেন প্রথমে তাদের হাতে মরদেহ হস্তান্তরিত করতে হবে।

এদিকে হাথরসের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী মােদীর নীরবতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষা ও পরিষদীয়মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। পার্থবাবু এদিন টুইটে লেখেন , ‘কুয়েতের আমিরের মৃত্যুতে শােক প্রকাশ করার মত মন এবং সময় আছে নরেন্দ্র মােদীর। কিন্তু হাথরসে আমাদের প্রতিবেশী একজন দলিত মেয়ের নৃশংস ধর্ষণ ও হত্যার ব্যাপারে তিনি একেবারে চুপ । তাঁর এই নীরবতা কিসের নিদর্শন?’ এর আগে মােদী আজ টুইটে কুয়েতের আমির শেখ সাবা আল আহমেদ আল জাবের আল সাবার মৃত্যুতে শােক প্রকাশ করেছিলেন। পাল্টা টুইট করে কটাক্ষ করেন পার্থবাবু ।

Related Articles

Back to top button
Close