fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কর্মী নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ তুলে তৃণমূল শ্রমিক সংগঠনের বিক্ষোভ বর্ধমানের অনাময় সুপার স্পেলালিটি হাসপাতালে

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: কর্মী নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ তুলে বৃহস্পতিবার বর্ধমানের ‘অনাময়’ সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের ভিতর ঢুকে বিক্ষোভ দেখাল তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠনের লোকজন । তারা রীতিমতো দলীয় পতাকা হাতে নিয়ে এদিন দুপুরে হাসপাতালে ঢুকে পড়েন ।

 

হাসপাতালের কার্ডিও , ট্রমা কেয়ার ও ইউরো বিভাগের সামনেও তাদের শ্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেতেও দেখা যায় । হঠাৎ করে হাসপাতাল চত্ত্বর বিক্ষোভ শ্লোগানে ভরে ওঠায় তঠস্ত হয়ে পড়েন চিকিৎসক , নার্স ও স্বাস্থ্য কর্মীরা । বিঘ্নিত হয় হাসপাতালের পরিষেবা । আতঙ্কিত হয়ে পড়েন রোগী তার পরিজনরা । খবর পেয়ে শক্তিগড় থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে শ্রমিক সংগঠনের সদস্যদের সরিয়ে থিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে ।

 

 

এরপরেই বিক্ষোভের আঁচ গিয়ে পড়ে সংস্কৃত লোকমঞ্চেও । সেখানে উপস্থিত থাকা জেলা তৃণমূল সভাপতি তথা রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথকেও বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয় । বিক্ষোভকারীরা মন্ত্রী স্বপন দেবনাথের কাছে বর্ধমান উত্তরের তৃণমূল বিধায়ক নিশীথ মালিকের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন । তারা মন্ত্রীকে অভিযোগে জানান , হাসপাতালের ঠিকাদার অধীনে কাজ করতেন উত্তম দে । গত ২৫ মার্চ তিনি মারা যান। পরিবারের অসহায়তার কথা ভেবে উত্তমবাবুর বড় ভাইকে কাজ দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছিল । অথচ অন্য ব্যক্তিকে হাসপাতালের কাজে নিয়োগ করা হয়ে গিয়েছে। এই নিয়োগ ব্যাপারে বর্ধমান উত্তরের বিধায়কের নামে মন্ত্রীর কছে অভিযোগ জানান বিক্ষুব্ধরা । যে কথা শুনে মেজাজ হারান স্বপনবাবু ।

 

 

তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন বর্ধমান মেডিকেল কলেজের সুপার স্পেশালিটি বিভাগ ‘অনানয় ’ হাসপাতালের ভিতরে ঢুকে বিক্ষোভ দেখানোটা মৌটেই ঠিক কাজ হয়নি । তবে শ্রমিক সংগঠনের দাবির বিষয়টি তিনি মানবিক দিক থেকে দেখবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন ।

 

 

আইএনটিটিউসির জেলা সভাপতি পাপ্পু আহমেদের বলেন,“ ঠিকাদার সংস্থা মৃত শ্রমিকের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিয়ে ছিল । তারপরেও হঠাৎ করে অন্য এক ব্যক্তিকে নিয়োগ করা হয় । পাপ্পু আহমেদ অভিযোগ বলেন ,এই নিয়োগের ব্যাপারে দালাল চক্র মাধ্যমে টাকা-পয়সার লেনদেন হয়েছে । এইসব কিছু জানার পরেই মৃতর পরিবারের প্রতি সহানুভূতিশিল কিছু মানুষজন উত্তেজিত হয়ে অনাময় হাসপাতালে বিক্ষোভ দেখিয়ে ফেলেছেন।“ যদিও অনাময় হাসযাতালের সুপার শকুন্তলা সরকার বলেন , এদিনের ঘটনা হালকা ভাবে নেওয়া হচ্ছে না । গোটা ঘটনার বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে ।

Related Articles

Back to top button
Close