fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

২ লক্ষ ভোটে জেতা সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় বেপাত্তা, কটাক্ষ জেলা সভাপতি জিতেন্দ্র তেওয়ারির

করোনা ও আমফান নিয়ে বিজেপি বাংলাকে বদনাম করার চেষ্টা করছে, কড়া সমালোচনা পশ্চিম বর্ধমান জেলা তৃণমূল-এর

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: মহামারি করোনা ভাইরাস ও ঘূর্ণিঝড় আমফানকে নিয়ে রাজ্যের বিরোধী দল রাজনীতি করছে। বিশেষ করে কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপি করোনা ভাইরাস ও আমফান নিয়ে বাংলা ও রাজ্য সরকারকে বদনাম করার চেষ্টা করছে। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বাংলাকে হেয় করার চেষ্টা করছেন।

 

 

বুধবার দুপুরে আসানসোলের উষাগ্রামের অগ্নিকন্যা ভবনে পশ্চিম বর্ধমান জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের ডাকা এক সাংবাদিক সম্মেলনে এইভাবেই বিরোধী দলগুলির সমালোচনার সুরে আক্রমণ করলেন আসানসোল পুরনিগমের মেয়র তথা পশ্চিম বর্ধমান জেলা তৃনমুল কংগ্রেসের সভাপতি জিতেন্দ্র তেওয়ারি ও জেলা চেয়ারম্যান তথা কো-অর্ডিনেটর ভি শিবদাসন ওরফে দাসু।

 

 

তারা আরো বলেন, দেশের অন্যান্য রাজ্যগুলির থেকে পশ্চিম বাংলায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি অনেক ভালো। রাজ্য সরকার গোটা পরিস্থিতি তৎপরতার সঙ্গে সামলেছে। তার মধ্যে রাজ্যের কয়েকটি জেলায় আমপানের মতো ঘূর্ণিঝড় সবকিছু তছনছ করে দেয়। সেইসব এলাকার মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছে রাজ্য সরকার। সেই ঝড়ে ১ লক্ষ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় তা বলার পরেও, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মাত্র ১ হাজার কোটি টাকা দেওয়ার কথা বলেছেন। জেলা সভাপতি জিতেন্দ্র তেওয়ারি বলেন, শুধু এই পশ্চিম বর্ধমান জেলাই নয়, গোটা বাংলায় মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সৈনিক হিসাবে তৃনমুল কংগ্রেসের নেতা ও কর্মীরা এই দুটি বিপর্যয়ে পড়া মানুষদের পাশে দাঁড়িয়ে দিনরাত সেবা করছেন।

 

 

লকডাউনে এই জেলায় ২ লক্ষ পিছিয়ে পড়া পরিবারের হাতে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস তুলে দেওয়া হয়েছে। প্রায় ৫ লক মানুষের মধ্যে করোনা ভাইরাসের সচেতনতার প্রচার করা হয়েছে। প্রতিদিন ১৫০টি ওয়ার্ড ও ৩২০টি গ্রামে স্যানিটাইজেশন করা হয়েছে। দলের নেতাদের তত্তাবধানে জেলা জুড়ে বেশকয়েকটি কমিউনিটি কিচেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। রাজ্য সরকারের নির্দেশ মতো দ্রুততার সঙ্গে ৩০টি কোয়ারান্টাইন সেন্টার করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ১ জুন পর্যন্ত পাওয়া তথ্য মতো করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা, তাদের সুস্থ করে তোলা থেকে টেস্ট সবকিছুতেই বাংলা অন্য রাজ্যের তুলনায় ভালো পরিস্থিতিতে আছে। কিন্তু, বিজেপি বাংলাকে উহান অফ ইন্ডিয়া বলে হেয় করার আপ্রাণ চেষ্টা করেছে।

 

 

রাজ্যের বিজেপির নেতারা প্রতি মুহুর্তে বাংলাকে বিপদের মুখে ফেলা চেষ্টা করেছেন। অথচ, তাদের দল যেসব রাজ্যে ক্ষমতায় আছে, সেখানকার পরিস্থিতি কি, তা তারা বলছেন না। আসানসোলের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় প্রতি মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়ের প্রসঙ্গে জেলা সভাপতি জিতেন্দ্র তেওয়ারি বলেন, উনি কথায় কথায় বলেন, আমাকে আসানসোলের মানুষ ভোট দিয়ে ২ লক্ষ ভোটে জিতিয়েছেন। লক ডাউনের সময় সেই সাংসদ দিল্লিতে বসে রইলেন। গান গাইলেন, ফিট থাকার পরামর্শ দিলেন। ভুল তথ্য সোশাল মিডিয়ায় দিয়ে আসানসোল তথা বাংলার মানুষকে বিপদে ফেললেন। যারা তাকে ভোট দিয়ে গত লোকসভা ভোটে জেতালেন, এই সময়ে সাংসদকে তাদের পাশে দেখা গেলোনা। লক ডাউনে কলকাতায় এলেন, কিন্তু আসানসোলে এলেন না।

 

 

শাসক দলের জেলা নেতৃত্বর সমালোচনা নিয়ে সাংসদ ও জেলা পদ্ম শিবিরের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি

Related Articles

Back to top button
Close