fbpx
কলকাতাহেডলাইন

ফেসবুকে পোস্টে আত্মহত্যার ইঙ্গিত দেখে কলকাতা পুলিশের তৎপরতায় বাঁচল টলিউড স্ক্রিপরাইটারের প্রাণ

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ফের যেন হারিয়ে যাচ্ছিল সদ্য প্রয়াত সুশান্ত সিং রাজপুতের মতো আরও একটি সম্ভাবনাময় জীবন। কিন্তু মর্মান্তিক ওই ঘটনার শিক্ষায় এই শহরের অবসাদগ্রস্ত মানুষজনের কার্যকলাপের ওপর নজরদারি বাড়িয়েছে কলকাতা পুলিশ। আর সেই তৎপরতাতেই এক টলিউড স্ক্রিপরাইটার যুবককে আত্মহত্যার আগেই বাঁচাতে সমর্থ হল রিজেন্ট পার্ক থানার পুলিশ।
জানা গিয়েছে, পেশাগতভাবে স্ক্রিপ্ট রাইটার ওই যুবক কাজ করেন টলিউডে। তাঁর দক্ষিন কলকাতার রিজেন্ট পার্ক থানা এলাকায়। দিন কয়েক ধরে আনমনা ছিলেন । ঠিক করে কথা বলছিলেন না  কারও সঙ্গেই । তার মধ্যেই প্রেমিকার সঙ্গে মনমালিন্য । সবমিলিয়ে অবসাদে আছন্ন বছর তেত্রিশের যুবক শেষ করে দিতে চেয়েছিলেন নিজেকে। তাঁর ফেসবুক পেজে আত্মহত্যার ইঙ্গিত ছিল একটি পোস্টে। ফেসবুকের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রয়োগে বিষয়টি বুঝতে পারার পরেই দ্রুততার সঙ্গে জানানো হয় লালবাজারে। আর লালবাজার থেকে বিষয়টি জানানো হয় রিজেন্ট পার্ক থানার পুলিশকে।
তারপরই পুলিশের তৎপরতায় বড়ুয়াপাড়া এলাকার একটি ফ্ল্যাট থেকে লেখককে অচৈতন্য অবস্থায় উদ্ধার করা হয় ।
পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে , যুবকের ফোন বন্ধ থাকার প্রথমে তাঁর খোঁজ মিলছিল না। তার বাড়িতে পুলিশ জানতে পারে, কিছু জিনিস আনার নাম করে ওই যুবক বেরিয়ে গিয়েছেন।  ফলে তাঁর ফেসবুক পোস্টের টাওয়ার লোকেশন ট্রাক করা হয়। খোঁজ মেলে বড়ুয়াপাড়ার একটি ফ্ল্যাটে। কিন্তু ঘরের ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে ততক্ষণে তিনি বিষ খেয়ে নিয়েছিলেন।  কোনওরকমে পুলিশ ফ্ল্যাটের দরজা ভেঙে তাঁকে উদ্ধার করে অচৈতন্য অবস্থায় তাঁকে নিয়ে যায় এসএসকেএম হাসপাতালে। সেখানেই প্রাথমিক চিকিৎসার পর জ্ঞান ফিরলে তাঁকে পরিবারের হাতে ছেড়ে দেওয়া হয় ।
পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই স্ক্রিপ্ট রাইটার কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন। ইতিমধ্যেই পুলিশ তাঁর কাউন্সেলিংয়ের ব্যবস্থা করেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ জানতে পেরেছে, তাঁর সঙ্গে বান্ধবীর মনোমালিন্য হয়েছিল। তার পরেই সে আত্মহত্যা করার সিদ্ধান্ত নেয়। তবে শেষ মুহূর্তে হলেও তাঁকে বাঁচাতে পেরে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন পুলিশ আধিকারিকরা।

Related Articles

Back to top button
Close