fbpx
কলকাতাহেডলাইন

তৃণমূলের বড় ছোট মেজ নেতারা রোজ লুঠ চালাচ্ছে সরকার তাদের গ্রেফতার করছে না কেন? সোমেন

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: তৃণমূলের নেতারা লুঠ চালাচ্ছে রাজ্য জুড়ে, মুখ্যমন্ত্রী গ্রেফতার করুন। তোপ দাগলেন বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা তথা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র। মঙ্গলবার এক সক্ষাতকারে ফের একবার বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে নিশানা করলেন সোমেন। তিনি বলেন, ‘তৃণমূলের বড়, ছোট , মেজো নেতারা সরকারি টাকা লুঠ করছেন। রোজ সংবাদমাধ্যমে মানুষ দেখছে। মুখ্যমন্ত্রী তাঁদের গ্রেফতার করছেন না কেন ?’

আমফান ও করোনার আবহে রাজ্যজুড়ে তৃণমূলি নেতাদের একের পর এক দুর্নীতি সামনে এসেছে। কখনও কখনও বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেও সরব হয়েছেন দলীয় নেতাদের আচরণে। কিন্তু কে কর কথা শোনে যে যা করার সে তাই করছেন। দলনেত্রীর নির্দেশ কে উপেক্ষা করেই চলছে কু- কীর্তি। এবার তার বিরুদ্ধে সোচ্চার হলেন বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা সোমেন মিত্র।

পাশাপাশি এদিন সোমেন বাস মালিক সংগঠনের সপক্ষে মুখ্যমন্ত্রীকে সওয়াল করেন। তিনি কড়াভাষায় প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, ‘ বাংলার মুখ্যমন্ত্রী বলে উনি কি যা খুশি তাই করতে পারেন? সকলের গলা কেটে নিতে পারেন? বাস না নামানোয় প্রাইভেট বাস মালিকদের ধমকাচ্ছেন। তারা কোথা থেকে এত টাকা পাবে। যেভাবে দিনদিন ফুয়েলের দাম বাড়ছে। তাতে ঘর থেকে টাকা দিয়ে বাস চালাতে হবে। বাস মালিকরা যে খরচ দেখাচ্ছে তাতে ঘর থেকে টাকা চলে যাবে দেনার দায়ে নিজেদের বিক্রি করতে হবে। এত বছর ধরে মুখ্যমন্ত্রী খালি ধমকাচ্ছেন। করোনাতেও এত ধমকা ধমকি হল। আখেরে কি হল?’

আরও পড়ুন: সুরক্ষার ব্যবস্থা না করে চিকিৎসক দিবসে চিকিৎসকদের বাদ দিয়ে বাকিদের ছুটি ঘোষণা প্রতারণা, দাবি সার্ভিস ডক্টরস ফোরামের

এদিন সোমেন কেন্দ্র রাজ্যকে তোপ দেগে আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী এবং রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর মধ্যে প্রতিযোগিতা চলছে কে কত গরিব দরদী। গরিবের পকেটে মাসে ৭৫০০ টাকা ঢোকানোর দাবি জানিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী, সেই দাবি নস্যাৎ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। শুধু চাল খেয়ে মানুষ বাঁচে না , বাঁচার জন্য আরও  কিছু দরকার, তার জন্য টাকা লাগে। ভাষণে মানুষের পেট ভোরে না , মাথায় ছাদ হয় না। তাঁর জন্য সদিচ্ছা লাগে। বিজেপি – তৃণমূল ভোটের রাজনীতি করছে এর মধ্যে গরিব মানুষ মারা যাচ্ছে। তাই এই ঘোষণা মানুষের বাঁচার রসদ যোগাবে না।’

Related Articles

Back to top button
Close