fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কেন্দ্রকে বিঁধতে গিয়ে ইসলামপুরে তৃণমূলের কানাইয়া-করিম গোষ্ঠীকোন্দল জনসমক্ষে

দীপঙ্কর দে, ইসলামপুর: দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে বাংলার প্রতি কেন্দ্র সরকারের বঞ্চনার বিরোধিতা করতে গিয়ে ইসলামপুরে তৃণমূলের ফের একবার কানাইয়া-করিম গোষ্ঠীকোন্দল জনসমক্ষে এসে পড়ল। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ মেনে কেন্দ্র সরকারের বঞ্চনার প্রতিবাদে সারা রাজ্যের পাশাপাশি ইসলামপুরেও অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করা হয়। সোমবার ইসলামপুর বাস টার্মিনাসে উত্তর দিনাজপুর জেলা তৃণমূল সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়ালের নেতৃত্বে ইসলামপুর ব্লক সভাপতি জাকির হুসেন, টাউন সভাপতি কৌশিক গুনের পরিচালনায় দুপুর ১২টা থেকে ২টা পর্যন্ত অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করা হয়।

এই অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচিতে ইসলামপুর পুরসভার অধিকাংশ প্রাক্তন কাউন্সিলর ও ইসলামপুর ব্লকের অধিকাংশ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান ও পঞ্চায়েত সদস্য সহ সংগঠনের নেতৃত্বরা হাজির ছিলেন। জেলা তৃণমূল সভাপতি তথা ইসলামপুর পুরসভার প্রশাসক কানাইয়ালাল আগরওয়ালের কর্মসূচী শেষ হতেই একই ইস্যুতে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে ইসলামপুরের তৃণমূল বিধায়ক তথা রাজ্য তৃণমূলের সহ সভাপতি আব্দুল করিম চৌধুরীর নেতৃত্বে শহরজুড়ে বিক্ষোভ মিছিল করা হয়। ইসলামপুর বিধানসভার পর্যবেক্ষক মহম্মদ কামালউদ্দিন, উত্তর দিনাজপুর জেলা পরিষদের সহকারী সভাধিপতি ফারহাত বানুর প্রতিনিধি তথা রাজ্য তৃণমূলের কোর কমিটির সদস্য জাভেদ আখতারের পরিচালনায় এই মিছিল হয়।

যদিও এদিনের মিছিলে করিম চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন না। একই ইস্যুতে পৃথক পৃথক কর্মসূচীতে তৃণমূলের দলীয় কোন্দল প্রকাশ্যে এসে পড়ে। দুই শিবিরই নিজের শক্তি প্রদর্শনে মাঠে নামে। যা থেকে অন্দরমহলে নিচুতলার কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ উঠতে শুরু করেছে। সম্প্রতি ইসলামপুর ব্লকের পন্ডিতপোতা অঞ্চলে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠী সংঘর্ষের জেরে গোয়ালপোখরের তৃণমূল বিধায়ক তথা রাজ্য শ্রম প্রতিমন্ত্রী গোলাম রব্বানীর বিরুদ্ধে ইসলামপুর বিধানসভা এলাকায় না ঢোকার ফতোয়া জারী করেছিলেন বিধায়ক করিম চৌধুরী। করিম সাহেবের মন্তব্য দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেছিলেন মন্ত্রী গোলাম রব্বানী। যার জবাবে কোনও তৃণমূলের কর্মী মন্ত্রীর বিরুদ্ধে খারাপ আচরন করলে তাঁর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন জেলা তৃণমূল সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল।

ওই ঘটনায় দলের ভেতরেই দুই শিবিরে পরস্পরের বিরুদ্ধে তীব্র আক্রোশ সামনে এসে পড়ে। সেই ঘটনার রেশ না কাটতেই ফের একই ইস্যুতে একই জায়গায় পৃথক পৃথক কর্মসূচী নিয়ে দুই পক্ষই দলীয় কোন্দল জিইয়ে রাখলেন বলে মত ওয়াকিবহাল মহলের। যদিও দলে কোনও গোষ্ঠীকোন্দল নেই বলে জানিয়েছেন করিম শিবিরের ইসলামপুর বিধানসভার পর্যবেক্ষক মহম্মদ কামালউদ্দিন। অন্যদিকে একই দলের নেতৃত্ব যে যেভাবে পারে দলীয় কর্মসূচী করতেই পারে বলে এড়িয়ে গিয়েছেন জেলা তৃণমূল সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল।

Related Articles

Back to top button
Close