fbpx
একনজরে আজকের যুগশঙ্খকলকাতা

গড়িয়াহাটে জোড়া খুন, তদন্তে পুলিশ

নিজস্ব প্রতিনিধি:  খাস কলকাতায় খুন। যা নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে গড়িয়াহাটের কাঁকুলিয়া রোড অঞ্চলে। রবিবার রাতে বাড়ির মধ্যে থেকে উদ্ধার হয়েছে জোড়া মৃতদেহ। পুলিশ জানিয়েছে, দেহ দু’টি সুবীর চাকি (৬১) ও তাঁর গাড়ির চালক রবীন মণ্ডলের (৬৫)। এদিন গড়িয়াহাটের কাঁকুলিয়া রোডের যে বাড়ি থেকে দেহ দু’টি উদ্ধার হয়েছে, সেটি সুবীরবাবুর। তবে সেখানে কেউ থাকতেন না বলেই জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা।

জানা গিয়েছে সুবীরবাবু বর্তমানে নিউটাউনে থাকতেন। তবে তিনি গড়িয়াহাটের বাড়িতে যাতায়াত করতেন। রবিবার বিকেলে তিনি গড়িয়াহাটের বাড়িতে যান। অনেক রাত পর্যন্ত তাঁর ফোন বন্ধ থাকায় পরিবারের সদস্যরা প্রতিবেশীদের খবর দেন। খবর দেওয়া হয় গড়িয়াহাট থানাতেও। খবর পেয়ে পুলিশ সেই বাড়িতে গিয়ে দেখে, দোতলায় সুবীরের দেহ পড়ে রয়েছে। চার দিক রক্তে ভেসে যাচ্ছে। রবীনের দেহ পড়েছিল তিন তলায়। দু’জনেরই গলা, কব্জি ও পায়ে আঘাতের চিহ্ন ছিল। দেহ দু’টি ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিক রিপোর্টে মনে করা হচ্ছে খুনের আগে তাঁদের অজ্ঞান করা হয়নি।

সুবীরবাবুর পরিবার জানিয়েছে গড়িয়াহাটের বাড়িটি বিক্রি করতে চাইছিলেন তিনি। সেই সূত্রে অনেক ক্রেতার সঙ্গে সুবীরের যোগাযোগ হয়েছিল।রবিবার কোনও ক্রেতার বাড়িটি দেখতে আসার কথা ছিল। সেই কারণে সেখানে যান সুবীর। কিন্তু কেউ বাড়ি দেখতে এসেছিলেন কি না, সে বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কিছু জানা যায়নি।

ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে গড়িয়াহাট থানার পুলিশ। বাড়ি থেকে কোনও কিছু চুরির অভিযোগ করা হয়নি। কী কারণে এই খুনের ঘটনা ঘটল তা তদন্ত করে দেখছে পুলিশ। পুলিশ মনে করছে রবিবার সুবীরবাবু ওই বাড়িতে যাবেন সেটা আগে থেকেই জানত আততায়ীরা। সম্ভবত তাদের কারও সঙ্গে সুবীরবাবুর যোগাযোগ ছিল। তাই সহজেই হত্যাকারীরা বাড়ির  মধ্যে প্রবেশ করতে পেরেছিল। সম্পত্তিগত কারণেও এই খুনের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে পুলিশ মনে করছে।

Related Articles

Back to top button
Close