fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মৃতদেহ সৎকার সেরে ফেরার সময় ডাম্পারের ধাক্কায় মৃত ২, জখম ২৩

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: মৃতদেহ সৎকার সেরে ট্রাক্টরের ট্রলিতে চড়ে গ্রামে ফেরার পথে ডাম্পারের ধাক্কায় মৃত্যু হল দুই শ্মশানযাত্রীরা। জখম হয়েছেন ২৩ জন। মৃতরা হলেন, কালিরাম হাঁসদা (৩০) ও অভয় বাস্কে (৩৪)। তাদের বাড়ি পূর্ব বর্ধমানের মেমারি থানার গোপগন্তার ১ পঞ্চায়েতের পাতরা গ্রামে । রবিবার গভীর রাতে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে মেমারি সাতগেছিয়া রোডে মেমারি থানার মুন্সিডাঙ্গা মোড় এলাকায়। চিকিৎসার জন্য জখম শ্মশানযাত্রীদের উদ্ধার করে পাঠানো হয়েছে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে। এদিনই মৃত ব্যক্তিদের দেহের ময়নাতদন্ত হয় বর্ধমান হাসপাতাল পুলিশ মর্গে। দুর্ঘটনাগ্রস্ত দুটি গাড়ি আটক করে পুলিশ দুর্ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে , রবিবার বছর ৬৫ বয়সী শ্যামলাল বাস্কে নামে পাতরা গ্রামের এক বাসিন্দা মারা যান। গ্রামের লোকজন দুটি ট্রাক্টরে চড়ে মেমারির দখলপুর শ্মশান ঘাটে তার দেহ সৎকার করতে যান। সৎকার সেরে গভীর রাতে ট্র্যাক্টরে চড়ে তারা নিজেদের গ্রামে ফিরছিলেন। পথে মুন্সিডাঙ্গা মোডে পিছন দিক থেকে আসা একটি ডাম্পার শ্মশানযাত্রীবাহী একটি ট্রাক্টরের পিছনে সজোরে ধাক্কা মারে। সেই ধাক্কায় ট্রলি সমেত ট্রাক্টরটি উল্টে গেলে ট্রাক্টরের ট্রলিতে চড়ে থাকা ২৩ জন ও ট্রাক্টর চালক জখম হন। খবর পেয়ে মেমারি থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের উদ্ধার করে প্রথমে মেমারি হাসপাতালে পাঠায় । আঘাত গুরুতর থাকায় তাদের কয়েকজনকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসাতালে পাঠানো হয়। বাকি ১২ জনকে স্থানান্তর করা হয় বর্ধমান হাসপাতালের সুপার স্পেশালিটি বিভাগ ‘অনাময় ’ হাসপাতালের ট্রামা কেয়ায় সুন্টারে। সেখানেই পরে মারা যান কালিরাম হাঁসদা ও অভয় বাস্কে । এই ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

Related Articles

Back to top button
Close