fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

রায়নায় রহস্যজনকভাবে মৃত্যু দুই গ্যারেজ কর্মীর

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: রহস্য জনক মৃত্যু হল মোটর গ্যারেজের দুই কর্মীর। পূর্ব বর্ধমানের রায়না থানার পলেমপুরে
গ্যারেজের ওই দুই মৃত কর্মীর নাম সন্তোষ ওরাং (১৮) ও সুনীল ওরাং (১৬)। পুরুলিয়ার বান্দোয়ান থানার ধবানি গ্রামে তাদের বাড়ি । রবিবার ভোর রাত থেকে হঠাৎতই তাঁদের অসহ্য পেটে যন্ত্রণা শুরু হয় । দু’জনকেই নিয়ে যাওয়া হয় বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। এদিনই মৃত দু’জনেরই মৃতদেহের ময়নাতদন্ত হয় বর্ধমান হাসপাতাল পুলিশ মর্গে। অস্বাবাভিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে রায়না থানার পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে ,প্রায় ছয় মাস আগে থেকে সুনীল রায়নার পলেমপুরের গ্যারেজে কাজ করছে। সন্তোষ মাস দুই আগে একই গ্যারেজে কাজে যোগ দেয় । তাদের সঙ্গে পুরুলিয়ার একই এলাকা নিবাসী কাশীনাথ ওরাং গ্যারেজে থাকতেন। কাশীনাথ ওরাং দীর্ঘদিন ধরে গ্যারেজে কাজ করছেন। তিনজন একসঙ্গে মিলে রাতের খাবার খেয়ে ঘুমাতে যান। কাশীনাথের কিছু না হলেও রবিবার ভোররাত থেকে হঠাৎই সন্তোষ ও সুনীলের অসহ্য পেটের যন্ত্রণা শুরু হয়। তারা পেটের যন্ত্রনায় কাতরাতে শুরু করলে স্থানীয়রা দু’জনকে উদ্ধার করে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক সন্তোষ ও সুনীলকে মৃত ঘোষণা করেন।

এই খবর পেয়ে এদিন সকালেই বর্ধমান হাসপাতালে পৌঁছান রায়না থানার ওসি পুলক মণ্ডল। তিনি চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেন। পাশাপাশি গ্যারেজের মালিক ও কাশীনাথের সঙ্গে কথা বলে ঘটনার বষয়ে খোঁজ খবর নেন। রাতের খাবারের বিষক্রিয়ায় দু’জনের মৃত্যু হতে পারে বলে চিকিৎসকদের প্রাথমিক অনুমান। পুলিশ খাবারের নমুনা সংগ্রহ করেছে।

গ্যারেজের দীর্ঘদিনের কর্মী কাশীনাথ পুলিশকে জানিয়েছে, রাতে তারা নিজেরাই ভাত ও সোয়াবিনের তরকারি রান্না করেছিলেন। সেই খাবার খেয়েই তারা শুয়ে পড়েছিলেন। ভোর রাত থেকে সন্তোষ ও সুনীলের অসহ্য পেটে যন্ত্রণা শুরু হলে তারা ছটফট করতে শুরু করে। কাশীনাথ বলেন, খাবারে বিষক্রিয়া হলেতো তিনিও অসুস্থ হয়ে পড়তেন। পুলিশকে এই বিষয়টিও ভাবিয়ে তুলেছে। রায়না থানার ওসি বলেন, ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে না আসা পর্যন্ত দু’জনের মৃত্যুর সঠিক কারণ বলা যাচ্ছে না। যে খাবার তারা খেয়েছিল তার নমুনা ফরেনন্সিক পরীক্ষার জন্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে পাবার পর পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Related Articles

Back to top button
Close