fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

এলাকা দখলকে ঘিরে দুই গোষ্ঠীর দ্বন্দ্ব, অন্ডালে ‘শুটআউট’, মৃত ১, আহত ২

জয়দেব লাহা, দুর্গাপুর: ফের শুট আউট। উত্তপ্ত খনি অঞ্চল। ঘটনাস্থল খনি অঞ্চল অন্ডালের খাস কাজোড়া। এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে দু-গোষ্ঠীর দ্বন্দ্ব। চলল গুলি। ঘটনায় মৃত্যু হল এক যুবকের। আহত হয়েছে আরও দুজন। বুধবার রাত্রে ঘটনাটি ঘটেছে, অন্ডালের খাস কাজোড়া এলাকায়। ঘটনায় ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, মৃতের নাম ধরমবীর নুনিয়া (৪২)। পেশায় গাড়িচালক। এলাকায় তৃণমূলকর্মী বলে পরিচিত। ঘটনায় ধরমবীরের ভাইসহ দু’জন জখম হয়েছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় দুর্গাপুরে একটি বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি।  ঘটনায় পুলিশ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। ঘটনাস্থল থেকে বেশ কয়েকটি গাড়ী আটক করেছে পুলিশ।  ঘটনায় জানা গেছে, বুধবার রাত্রে খাস কাজোড়া নুনিয়া পাড়ায় ধরমবীর সহ বেশ কয়েকজন বসেছিল। অভিযোগ, ওইসময় কয়েকটি গাড়ীতে জনা কয়েক দুস্কৃতী মোটরবাইক ও চারচাকা গাড়ীতে এসে সশস্ত্র হামলা চালায়। ধরমবীরকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় বলে অভিযোগ। ধরমবীর তার এক ভাই পান্নালাল সহ আরও একজনকে লাঠি, রড দিয়ে মারধর করে বলে অভিযোগ।
গুলির আওয়াজে এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। আশপাশের লোকজন বেরিয়ে আসতেই দেখেন রক্তাত্ব অবস্থায় ধরমবীর ও তার ভাই কাতরাচ্ছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাদের হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা ধরমবীরকে মৃত বলে ঘোষনা করে। বাকি দুজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় দুর্গাপুরে এক বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে। ঘটনায় অভিযোগ ওঠে বিদ্যুৎ নুনিয়া নামে এক তৃণমূলকর্মী ও ব্যবসায়ী বিরুদ্ধে। বৃহঃস্পতিবার ঘটনায় অপরাধীদের গ্রেফতারের দাবীতে অন্ডাল থানা ঘেরাও করে স্থানীয় বাসিন্দারা। ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশের আশ্বাসে বিক্ষোভ ওঠে। স্থানীয় তৃণমূল নেতা তথা জেলা পরিষদের সদস্য বিষ্ণুদেব নুনিয়া বলেন,” ধরমবীর ও বিদ্যুৎ দুজনই তৃণমূলকর্মী।
দুজনের মধ্যে গত কয়েক দিন ধরে শত্রুতা চলছিল। বুধবার সকালে একপ্রস্ত বাদানুবাদ হয়। তারপর রাত্রে এই ঘটনা। পুলিশকে বলা হয়েছে, ঘটনার তদন্ত করে আইনানুুগ শাস্তির জন্য।” জানা গেছে, মাস ছয়েক ধরে কোলিয়ারিতে কয়লার ডিও নিয়ে বিদ্যুৎ নুনিয়া ও ধরমবীরের সঙ্গে দ্বন্দ্ব চলছিল। তার সঙ্গে এলাকা দখল নিয়ে দুই গোষ্ঠীর দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসে। গত কয়েকদিন
ওই দ্বন্দ্ব চরমে ওঠে। জানা গেছে, বুধবার সকালে দুজনের মধ্যে বচসা হয়। এবং ধরমবীরকে হুমকি দেয় বলে অভিযোগ। তবে কি কারনে খুন, সে নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এদিন পরিবারের পক্ষ থেকে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করে। আসানসোল-দুর্গাপুর পুলিশ কমিশনার সুকেশ জৈন জানান,” এলাকায় পুলিশ মোতায়ন রয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক। ঘটনায় ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে।”

Related Articles

Back to top button
Close