fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

জবকার্ড চাইতে গিয়ে মারধর ও শারীরিক নির্যাতনের শিকার দুই গৃহবধূ

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা: জবকার্ড চাওয়াকে কেন্দ্র করে, দুই পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষ। এই ঘটনায় আহত দুই গৃহবধূ।তাঁদের জবকার্ড আটকে রেখে দীর্ঘদিন ধরে হেনস্থা করা হয় বলে অভিযোগ। এদিন তাঁরা জবকার্ড চাইতে গেলে ওই দুই মহিলাকে বেধড়ক মারধর ও শারীরিক ভাবে নির্যাতন করা হয় বলে অভিযোগ।  ঘটনাটি ঘটেছে, উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার বসিরহাট মহাকুমার হাড়োয়া থানার গোপালপুর এক নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের গোপালপুর দাস পাড়া গ্রামে।

জানা গিয়েছে,  তুফান রুইদাস ওই গৃহবধূর জব কার্ড আটকে রাখে এবং গতকাল বৃহস্পতিবার রাত্রিবেলা জবকাড চাইতে গেলে দুই গৃহবধূকে রীতিমতো মাটিতে ফেলে বেধড়ক মারধর করে পাশাপাশি শ্লীলতাহানি করা হয় তাদের পরনের শাড়ি ব্লাউজ ছিড়ে দেওয়া হয় এবং রীতিমত শারীরিক নিগ্রহ করে অভিযুক্ত তুফান দাস, বিট্টু দাস, সুমন দাস, শুকদেব দাসের বিরুদ্ধে । এই ঘটনায় দুই গৃহবধূ আহত হন তাদেরকে উদ্ধার করে হাড়োয়া গ্রামীণ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়।

আরও পড়ুন: অস্ত্রোপচার সফল, মুকুল রায়কে হাসপাতালে দেখতে গেলেন দিলীপ ঘোষ

অন্যদিকে তুফান দাস এর পক্ষ থেকে ঘটনার কথা অস্বীকার করে এবং সে বলে তাদেরও এক মহিলাকে মারধর করে বলে অভিযোগের পাল্টা অভিযোগ। তারপর উভয় পক্ষই হাড়োয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। শুধুই কি জব কার্ড নিয়ে এই গন্ডগোল? না অন্য কোনো কারণ?না রাজনৈতিক কোন উদ্দেশ্য এই গন্ডগোল। পুরো বিষয়টি নিয়ে খতিয়ে দেখছে পুলিশ। তার পাশাপাশি বিজেপি নেতা তুফান দাস পাল্টা অভিযোগ করেছে, ওই আক্রান্ত মহিলাদের বিরুদ্ধে। তারাও মারধর করেছে তাদের পরিবারের সদস্যদের, উভয় পক্ষই হাড়োয়া থানায় অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে হাড়োয়া থানার  পুলিশ। এই ঘটনায় ওই এলাকায় চাপা উত্তেজনা রয়েছে, এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close