fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মহারাষ্ট্র থেকে পূর্ব বর্ধমানে ফেরার পথে রাঁচিতে বাস দুর্ঘটনায় মৃত্যু দুই পরিযায়ী শ্রমিকের, আহত ২৩

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: বাসে চেপে মহারাষ্ট্র থেকে পশ্চিমবঙ্গে ফেরার পথে ভয়াবহ পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল দুই পরিযায়ী শ্রমিকের। আহত হয়েছেন বাসে থাকা আরও ২৩ জন। মৃত ও আহতরা সকলেই পূর্ব বর্ধমানের নাদনঘাট থানা এলাকার বাসিন্দা। ঝাড়খণ্ডের রাঁচি প্রশাসন মঙ্গলবার বিকালে এই দুর্ঘটনা কথা পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসনকে জানায়। ওইদিন
সন্ধ্যা নাগাদ পুলিশ মাধ্যমে এই খবর পৌঁছায় মৃতদের বাড়িতে। খবর জানাজানি হতেই এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

পূর্ব বর্ধমানের জেলা শাসক বিজয় ভারতী জানিয়েছেন,“মঙ্গলবার ভোর রাতে ওড়িশা ও রাঁচির সীমান্তবর্তী রাজারাপ্পার কাছে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে রাঁচির জেলাশাসক তাঁকে জানিয়েছেন। মৃতদেহ দুটি রাঁচি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রয়েছে। সেখানে আহতদেরও চিকিৎসা চলছে। করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসার পরেই মৃত ও আহতদের ব্যাপারে রাঁচি প্রশাসন পরবর্তি পদক্ষেপ নেবে বলে জানিয়েছে’’।

প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত পরিযায়ী শ্রমিকদের নাম বাবু শেখ (২২)ও হাবিবুল মণ্ডল (১৯)। নাদনঘাটের বনপুকুর গ্রামে বাবু শেখের বাড়ি। অপর মৃত হাবিবুলের বাড়ি নাদনগাটের বগপুর গ্রামে।

নিতান্তই দিনআনা দিনখাওয়া পরিবারের এই দুই যুবক সহ অপর আহতরা মহারাষ্ট্রে শ্রমিকের কাজ করতেন।লকডাউন চালু হওয়ার পর কাজকর্ম বন্ধ হয়ে গেলে তাঁরা বিপাকে পড়ে যান। পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ওই পরিযায়ী শ্রমিকদের বাংলায় ফেরৎ পাঠানোর জন্য মহারাস্ট্র থেকে বাসের ব্যবস্থা করা হয়।সেই বাস পথ ভুল করে রাঁচি চলে যায়।মঙ্গলবার ভোররাতে রাজারাপ্পার কাছে বাসটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে।

সেই দুর্ঘটনায় বাবু ও হাবিবুলের মৃত্যু হয়। আহত ২৩ জনের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক রয়েছে।ইদ উৎসব মিটতে না মিটতে পরিবার সদস্যদের এমন অকাল মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ হয়ে পড়েছেন পরিজনরা। সন্তানদের মৃতদেহ কবে কিভাবে বাড়িতে ফিরবে! আহতরাই বা কবে ফিরবে! এইসব উত্তরই এখন খুঁজে বেড়াচ্ছেন মৃত ও আহতদের পরিজনরা।
রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ এবং জেলাশাসক বিজয় ভারতী এই বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button
Close