fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

অনিশ্চিত পরিষেবা! ‘সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে মেট্রো চালানো সম্ভব নয়’, বৈঠকে জানাল কর্তৃপক্ষ

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  বাস ভাড়া বৃদ্ধির দাবিতে রাস্তাতে বাস নামাচ্ছেন না বেসরকারি বাস মালিকদের সংগঠন। একইসঙ্গে বন্ধ রয়েছে লোকাল ট্রেন পরিষেবাও। এই রকম অবস্থায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চেয়েছিলেন জুলাই থেকেই চালু হোক মেট্রো।কিন্তু সমস্যা হচ্ছে যাত্রী ভিড় নিয়ন্ত্রণ ও সংক্রমণ ঠেকানো। এই পরিস্থিতিতে সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে মেট্রো চালানো সম্ভব নয়, স্বরাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে বৈঠকে এমনটাই জানাল মেট্রোর আধিকারিকরা।জুলাইয়ে মেট্রো চালানো হবে কি না, সে বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে রেলবোর্ড। তবে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে যে, এখনই শুরু হচ্ছে না মেট্রো পরিষেবা।

এদিন রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বৈঠকে যোগ যোগ দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়, পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা, পরিবহণসচিব প্রভাত মিশ্র এবং ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মা। কলকাতা মেট্রোর পক্ষ থেকে এই বৈঠকে রয়েছেন সংস্থার জেনারেল ম্যানেজার মনোজ জোশী ও চিফ অপারেটিং ম্যানেজার সাত্যকি নাথ। ইতিমধ্যেই সেই বৈঠক শুরুও হয়ে গিয়েছে। বৈঠকে মোটামুটি পরিস্কার হয়ে গিয়েছে যে, পরিষেবা চালু করার আগে সংক্রমণ মোকাবিলা নিয়ে নিশ্চিত হতে চায় মেট্রো কর্তৃপক্ষ। করোনা থেকে যাত্রীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা এবং সংক্রমণের সম্ভাবনা যতটা সম্ভব কমানোর জন্য মেট্রোর থেকে রাজ্য সরকার কী কী পদক্ষেপ চাইছে, সে সব নিয়েই আলোচনা চলছে।

সোমবার মেট্রোর তিন প্রতিনিধির সঙ্গে নবান্নে বৈঠকে বসেন স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। জানা গিয়েছে, সেই বৈঠকেই মেট্রোর তরফে সাফ বলা হয়েছে যে, সামাজির দূরত্ব বিধি মেনে মেট্রো চালানো কার্যত সম্ভব। এতেই মনে করা হচ্ছে যে এখনই চালু হবে না মেট্রো পরিষেবা। সূত্রের খবর, এবিষয়ে রেলমন্ত্রকের সঙ্গে রাজ্যকে কথা বলার পরামর্শ দিয়েছেন মেট্রোর আধিকারিকরা।সেই আবেদন যদি রেলমন্ত্রক গ্রহণ করে এবং কলকাতা মেট্রোর পরিষেবা শুরু করার জন্য লিখিত নির্দেশ জারি করে তাহলে যত দ্রুত সম্ভব পাতালে ট্রেন ছোটাতে পদক্ষেপ নেবে মেট্রো কর্তৃপক্ষ। তবে সেক্ষেত্রে মহামারী আইন জারি থাকায় কিছু সমস্যাও হবে।

আরও পড়ুন: কাশ্মীরের রাজনীতিতে বড়সড় ধাক্কা, হুরিয়ত কনফারেন্স ছাড়লেন গিলানি

মুখ্যমন্ত্রী চাইছেন যত আসন তত যাত্রী নিয়েই চলুক মেট্রো। কিন্তু এদিনের বৈঠকে মেট্রো রেলের আধিকারিকেরাই প্রশ্ন তোলেন, পাশাপাশি বসা মানেই তো সামাজিক দূরত্ব মেনে না চলা। সেক্ষেত্রে তো আইন লঙ্ঘন ঘটবে। বৈঠমে মেট্রো আধিকারিকেরা জানিয়েছেন, যদি যত আসন তত যাত্রী নিয়েই মেট্রো চালানো হয় তাহলে মাঝপথের যাত্রীরা তো ট্রেনে উঠতেই পারবেন না। কারন দমদম থেকে যদি সব আসন ভরে যায় তাহলে তার পরের স্টেশনগুলিতে তো কোনও যাত্রীই উঠতে পারবেন না। সব মিলিয়ে কার্যত চূড়ান্ত অনিশ্চিত কলকাতার মেট্রো পরিষেবা।

তাই পয়লা জুলাই থেকে তো দূর, কবে আবার কলকাতায় মেট্রোর দৌড় শুরু হবে সেটাই এখন অনিশ্চয়তায় ঢাকা পড়ে গিয়েছে। আর শুধুমাত্র কলকাতার জন্য রেলমন্ত্রক আলাদা করে কোনও অনুমতি দেবে বলে মনে করছেন না মেট্রো রেলের আধিকারিকেরা। এমনকি তাঁরা নিজেদের ঝুঁকিতে ট্রেন চালাতে চানও না। বৈঠকে তাঁরা কার্যত রাজ্যকে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, রেল মন্ত্রকের অনুমতি ছাড়া ট্রেন চালানো যাবে না। রাজ্য মন্ত্রককে আবেদন করুক। যেহেতু আগামী ১২ আগস্ট পর্যন্ত গোটা দেশে ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে তাই রেলমন্ত্রক লিখিত অনুমতি বা নির্দেশ না দিলে কলকাতা মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ ট্রেন চালানোর পথে হাঁটবে না।

 

Related Articles

Back to top button
Close