fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

খবরের শিরোনামে পশ্চিম মেদিনীপুর! উদ্ধার কিশোরীর অনাবৃত দেহ, ঘটনাস্থলে মিললো পায়ের ছাপ…

তারক হরি, পশ্চিম মেদিনীপুর: পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ডেবরা ব্লকের চণ্ডীপুর গ্রামের ফুল চাষের মাঠ থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এক কিশোরীর দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। বাড়ি থেকে আড়াই কিলোমিটার দূরে ওই কিশোরীর অবিন্যস্ত দেহ মিলেছে। তদন্ত শুরু করেছে ডেবরা থানা এলাকায়। খেতমজুর পরিবারের ওই কিশোরী বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে নিখোঁজ ছিলেন এমনটাই দাবি করেছে পরিবার। জানা গেছে ডেবরা থানার জলিমান্দা গ্রামপঞ্চায়েত এলাকার অজমৎপুর গ্রামের বাসিন্দা ওই কিশোরী দুপুর বেলায় প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বাইরে মাঠের দিকে গিয়েছিলেন। প্রচুর বৃষ্টি হচ্ছিল সেই সময়। তারপর আর বাড়ি ফেরেনি।

এদিকে ডেবরা থানা এলাকারই পার্শ্ববর্তী থানা পিংলার সীমান্তবর্তী ওই গ্রাম চণ্ডীপুর। যা কিনা ওই কিশোরীর গ্রাম অজমৎপুর থেকে প্রায় আড়াই কিলোমিটার দুরে। ফুলচাষে সমৃদ্ধ সেই চণ্ডীপুর গ্রামের ফুলচাষীরা মাঠে ফুল তুলতে গিয়ে দেখে ফুল চাষের মাঠেই একটি অগভীর স্যালোর গর্তের জলে পড়ে রয়েছে এক কিশোরীর দেহ। তার পরনের সালোয়ার অবিন্যস্ত।
তাঁদের কাছ থেকে খবর পেয়ে ডেবরা থানার পুলিশ সন্ধ্যায় এসে দেহটি উদ্ধার করে। পুলিশ জানিয়েছে দেহটি অজমৎপুর গ্রামের নিখোঁজ হওয়া কিশোরীর।

সূত্রে জানা গিয়েছে ওই কিশোরী কিছুদিন আগে পালিয়ে বিয়ে করে। কিন্ত শ্বশুরবাড়িতে মাঝে মধ্যেই সমস্যা হত, এবং সে প্রায়ই বাপের বাড়িতে এসে থাকত। এবারও সেরকমই ছিল। রাতে বাবা মায়ের সঙ্গে সামান্য মন কষাকষি হয় কিশোরীর। বৃহস্পতিবার দুপুরে মেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায় তার পর আর ফেরেনি।

আরও পড়ুন:হিংসামুক্ত পশ্চিমবঙ্গ গড়াই হবে গান্ধীজীর প্রতি আমাদের প্রকৃত শ্রদ্ধাজ্ঞাপন

কিছু স্থানীয়দের বক্তব্য, পুলিশ যখন দেহটি উদ্ধার করে তখন মেয়েটির পোশাকের উর্ধভাগ প্রায় অনাবৃত ছিল। মৃতদেহের আশপাশে কয়েকটি পায়ের ছাপও তারা লক্ষ্য করেছে। পুলিশ জানিয়েছে কিশোরীর মুখে বিষক্রিয়ার ফলে গাঁজলার লক্ষণ ছিল। কিশোরীর বাবা মায়ের সঙ্গে কথা বলছে পুলিশ ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু হয়েছে।

তবে মেয়েটি এতদুরে কেন এল? সে কি নিজে এসেছিল নাকি কেউ তাকে নিয়ে এসেছিল? এই সব নানান প্রশ্নের উত্তর খুঁজছে পুলিশ। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত তদন্তের স্বার্থে পুলিশ এখন সব কথা বলতে রাজি নয়। এই ঘটনা শুধুই খুন না, খুনের আগে ধর্ষণ তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। উল্লেখ্য এই নিয়ে গত দেড়বছরে এমনই তিনটি ঘটনা ঘটেছে, আবারও, সেই ডেবরা!

Related Articles

Back to top button
Close