fbpx
কলকাতাশিক্ষা-কর্মজীবনহেডলাইন

অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রের শিশুদের জন্য বিকল্প পাঠের উদ্যোগ নিল UNICEF

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা অতিমারীর জন্য সকলের সুরক্ষার জন্য জারি করা হয়েছে লকডাউন। তবে এই লকডাউনের জেরে দীর্ঘদিন হল স্কুল কলেজ ইউনিভার্সিটি বন্ধ। শুরু হয়েছে অনলাইনের মাধ্যমে শিক্ষা প্রদান। তবে অনেকেই সেই শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ফলে অনলাইনে শিক্ষার সুযোগ নেই এমন শিশুদের পাশে দাঁড়ালো রাজ্যের নারী ও শিশু কল্যাণ দপ্তর ।

জানা গিয়েছে, UNICEF-এর সহযোগিতায় বিকল্প শিক্ষা প্রদানে উদ্যোগী হল রাজ্য সরকার ৷ ১ লক্ষ ১৮ হাজার অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রের প্রায় ৩৫ লক্ষ শিশুকে এর আওতায় শিক্ষা প্রদান করা হবে । তবে শুধুমাত্র শিক্ষা নয়, শিশুমনের বিকাশ ঘটাতে বড় পদক্ষেপ নারী ও শিশুকল্যাণ দফতরের ।

উল্লেখ্য, করোনা অতিমারীর জেরে কয়েকমাস ধরে বন্ধ স্কুল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ৷ পড়ুয়ারা যাতে পিছিয়ে না পরে তারজন্য সরকারি, বেসরকারি স্কুলগুলিতে অনেকদিন ধরেই শুরু হয়েছে অনলাইনে পঠন পাঠন ৷ কিন্তু যেসব দুঃস্থ পরিবারের শিশুরা অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে পড়াশোনা করে, যাদের স্মার্ট ফোন নেই, তাদের কী হবে? এই ভাবনা থেকেই অভিনব পরিকল্পনা রাজ্যের নারী ও শিশু কল্যাণ দপ্তরের ।

জানা গেছে, অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রের ৩ থেকে ৬ বছরের শিশুদের উপযোগী ছড়া, রূপকথার গল্প ও জিংগেল বানিয়ে অডিয়ো ফরম্যাটে সেগুলি তাদের অভিভাবকদের মোবাইলে পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে ৷ সেক্ষেত্রে স্মার্টফোন থাকা বাধ্যতামূলক নয় ৷ যে কোনও সাধারণ ফোনেও শোনা যাবে সেইসব অডিও ৷ সেগুলি শুনে খুব সহজেই শিক্ষা লাভ করতে পারবে শিশুরা । পাশাপাশি
ঘটবে মানসিক বিকাশ ।

রাজ্যের নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রী শশী পাঁজা বলেন, ” ইতিমধ্যেই জেলায় শুরু হয়েছে এই প্রয়াস । এবারে শহরেও শুরু করা হবে ৷ শিশু মনের খোরাক ছড়া ও জিংগেলের মাধ্যমে পড়াশোনা করতে গিয়ে সবুজ হবে হৃদয় । চাঙ্গা হবে মন । আর এটা হলেই বর্তমান পরিস্থিতিতে সার্থক হবে প্রয়াস ।”

Related Articles

Back to top button
Close