fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

প্রেমের সম্পর্কে দুই পরিবারের মধ্যে অশান্তি, আত্মঘাতী নাবালিকা প্রেমিকা

মিল্টন পাল,মালদা: প্রেমের সম্পর্ক মেনে না নেওয়ায় প্রেমিকাকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ। অপমান সহ্য করতে না পেরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করল প্রেমিকা। শনিবার ঘটনাটি ঘটেছে মালদার মানিকচক থানার এনায়েতপুর গ্রামে। ঘটনার পর থেকে পলাতক প্রেমিক ও তার পরিবারের সদস্যরা। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতের নাম জলেখা খাতুন (১৫)। বাড়ি এনায়েতপুর গ্রামে। মৃতের বাবা আবসারুল মোমিন জানান, এনায়েতপুর বাজার এলাকার বাসিন্দা আসলাম শেখের সঙ্গে এক বছর আগে প্রতিবেশীর বাড়িতে থেকেই তাদের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর যতদিন গিয়েছে তবে তাদের সম্পর্ক গভীর হয়েছে। ঘটনাটি প্রেমিকের পরিবার জানতে পারে।এরপর প্রেমিকের বাড়ির সদস্যরা প্রেমিকার বাড়িতে চড়াও হয়ে তাদেরকে বেধড়ক মারধর করে গত কয়েক মাস আগে। যদিও সেই সময় গ্রামের বাসিন্দাদের তৎপরতায় দুই পরিবারের মধ্যে সমস্যার সমাধান করা হয়। যদিও এত বড় ঘটনা ঘটলেও তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক আরও গভীর হতে থাকে। এরফলে প্রেমিকের পরিবারের সদস্যরা প্রেমিকা রাস্তাঘাটে বের হলে তাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। শুক্রবারও ঠিক একই ঘটনা ঘটে। রাতে আসলাম শেখের সঙ্গে মোবাইল ফোনে জলেখার কথা হয়। বারবার অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজে অপমানিত বোধ করে জলেখা। এরপরই রাতেই বাড়ি থেকে বের হয়ে যায় জলেখা।গভীর রাত হয়ে গেল তার কোন খোঁজ খবর পাওয়া যাচ্ছিল না।

আরও পড়ুন:কুমারী পুজোয় এবছর দর্শনার্থীদের জন্য বন্ধ থাকবে বেলুড় মঠের দরজা!

এরপর শনিবার সকাল বেলা বাড়ি থেকে ১০০ মিটার দূরে একটি আম গাছের গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় জলেখার মৃতদেহ উদ্ধার হয়। মৃতের পরিবারের অভিযোগ, মেয়েকে বারবার অপমান করার জন্যই অপমানে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা হয়েছে। গোটা ঘটনা নিয়ে আসলাম শেখ সহ তার পরিবারের সদস্যদের নামে মানিকচক থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, জলেখার মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর থেকে আসলাম শেখ ও তার পরিবারের সদস্যরা গা ঢাকা দিয়ে রয়েছে। তাদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close