fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

উত্তরবঙ্গে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে উপসর্গহীন করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসাকেন্দ্র গড়ার উদ্যোগ

সঞ্জিত সেনগুপ্ত, শিলিগুড়ি: উত্তরবঙ্গের জেলায় জেলায় প্রতিদিনই  করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।  এতে অদূর ভবিষ্যতে হাসপাতালের অভাব দেখা দিতে পারে। একথা মাথায় রেখে সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টারগুলিকে উপসর্গহীন করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হবে। এর পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালগুলিতে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য পরিকাঠামো তৈরি করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। শনিবার শিলিগুড়িতে উত্তরকন্যায় এক প্রশাসনিক বৈঠক এমনটাই সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন উত্তরবঙ্গের করোনা চিকিৎসা ব্যবস্থার ওএসডি ডাক্তার সুশান্ত রায়।

এ দিনের বৈঠকে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, দার্জিলিংয়ের জেলাশাসক এস পুন্নমবালম, জলপাইগুড়ি বিভাগীয় কমিশনার অজিত বর্ধন, আইএমএ এবং নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে ডাক্তার সুশান্ত রায় সাংবাদিকদের জানান, উত্তরবঙ্গে করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ৯২ শতাংশ উপসর্গহীন। তাই এদের চিকিৎসার জন্য আলাদা কোভিড সেন্টার তৈরির কথা ভাবা হয়েছে। সেক্ষেত্রে সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টারগুলিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। কেননা বেশকিছু কোয়ারেন্টাইন সেন্টার খালি হতে শুরু করেছে। এর পাশাপাশি নার্সিংহোম গুলিকে তাদের একটা অংশে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য আলাদাভাবে ব্যবস্থা করার কথাও বলা হয়েছে।

এক প্রশ্নোত্তরে তিনি বলেন, ‘ বিভিন্ন জায়গা থেকে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে যে বেশকিছু নার্সিংহোম ও তাদের ডাক্তাররা জ্বর, সর্দি কাশি নিয়ে কোনও রোগি গেলেই তাদের উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজে রেফার করে দিচ্ছেন। এই রেওয়াজ বন্ধ করতে হবে। সকলের চিকিৎসা দেওয়ার ব্যাপারে নার্সিংহোম ও তাদের চিকিৎসকদের দায়িত্ব নিতে হবে।’

যদিও এ ব্যাপারে ডাক্তাররা তাদের কিছু সমস্যার কথা জানিয়েছেন। ডাক্তারদের বক্তব্য, করোনা আক্রান্ত বা আক্রান্ত সন্দেহজনকদের চিকিৎসা করলে বাড়ি ফেরার ক্ষেত্রে প্রতিবেশীদের কাছ থেকে তারা বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন। এ কারণেই তারা সব রোগী দেখছেন না। এ ব্যাপারে ডাক্তার সুশান্ত রায় জানিয়েছেন, সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে নিয়ে এর মধ্যেই তারা বৈঠকে বসবেন যাতে করোনা সংক্রমণ নিয়ে সাধারণ মানুষের মনে এ ধরনের ভুল ধারণা না থাকে।
এদিকে এদিন উত্তরকন্যার কর্মীরা তাদের একদিনের বেতনের টাকা দিয়ে মোট এক লক্ষ এক হাজার ৭৯৪ টাকা মুখ্যমন্ত্রীর বিশেষ তহবিলের জন্য উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রীর হাতে তুলে দিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button
Close