fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

স্কুল তহবিলে দুর্নীতির অভিযোগে সবংয়ে প্রধান শিক্ষককে ঘিরে বিক্ষোভ গ্রামবাসীদের

তারক হরি, পশ্চিম মেদিনীপুর: মিড-ডে-মিল, ভবন নির্মাণ সহ বিভিন্ন বিষয়ে স্কুলের টাকা তছরুপ ও বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে একটি প্রাথমিক স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখালেন এলাকার গ্রামবাসীরা। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরের সবং থানা এলাকার চাউলকুড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত দেউলপোতা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এই ঘটনায় এলাকায় যথেষ্ট উত্তেজনা তৈরি হয়। বিক্ষোভরত গ্রামবাসীদের দাবি, স্কুলের উন্নয়ন খাতে সরকারি বরাদ্দ অর্থের তছরূপ সহ নানা প্রকার দুর্নীতিতে অভিযুক্ত ওই শিক্ষক।

স্থানীয় এক বাসিন্দার অভিযোগ, বিদ্যালয়ের ভবন নির্মান বাবদ যে ইট আনা হয়েছিল তার কিছু অংশ কয়েকদিন আগে প্রধান শিক্ষক নিজের বাড়িতে সরাতে গিয়ে গ্রামবাসীদের হাতে ধরা পড়েন। অতিরিক্ত পড়ুয়া দেখিয়ে মিড-ডে-মিলের বরাদ্দ আনানো হয় এবং সেই অতিরিক্ত বরাদ্দ শিক্ষক নিজের ব্যক্তিগত তহবিলে সরিয়ে নেন। উপরন্তু পড়ুয়াদের নিম্ন মানের খাবার পরিবেশন করা হয়। তাঁদের আরও অভিযোগ, গ্রন্থাগারের টাকা আত্মসাৎ করেছেন এই ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক।

অভিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক প্রাণকৃষ্ণ সাঁতরা বলেন, “এই সমস্ত অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। এই স্কুলের সমস্ত কাজই অভিভাবক কমিটি (ভি.এল.সি) এবং পঞ্চায়েতের তত্ত্বাবধানেই হয়ে থাকে। যে ইট সরানোর কথা বলা হচ্ছে, তা স্কুল ভবন নির্মানের পর অতিরিক্ত ইট যা এখানে ফেলে রাখলে চুরি যেত, সেটাই সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল এবং পঞ্চায়েতের সঙ্গে কথা বলেই তা হয়েছে। কারন উনি ভিএলসি কমিটির সভাপতি। বিগত ১৭ বছর ধরে আমি এই দায়িত্বে রয়েছি কোনও প্রশ্ন ওঠেনি। কিন্তু গত ২ বছর ধরে একটি প্রতিহিংসা থেকে এই কাজ করা হচ্ছে। স্কুলের ভালোমন্দ বিচার করার জন্য ভিএলসি কমিটি রয়েছে তারা কোথাও কোনও আপত্তি করেননি। অথচ কিছু মানুষ আসছেন আর যখন তখন বলছেন মিটিং করতে হবে, কাগজ দেখাতে হবে। আমি ভিএলসি কমিটি ছাড়া কাউকে কোনও কাগজ দেখাতে বা মিটিংয়ে বসতে পারিনা।”

পাল্টা গ্রামবাসীরা দাবি করেছেন, বিভিন্ন নিয়ম কানুনের দোহাই দিয়ে এভাবেই অনিয়ম বেনিয়ম করে যাচ্ছেন অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক। গ্রামের বাসিন্দাদের সঙ্গে পুরো বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনায় না বসলে ভবিষ্যতে বৃহত্তর আন্দোলনে যাবেন তারা। এরপর ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এই দাবিগুলি নিয়ে আলোচনার আশ্বাস দিলে বিক্ষোভ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। ঘটনার জেরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় ওই এলাকায়।

Related Articles

Back to top button
Close