fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

এই দুঃসময়ে যেন রাজনৈতিক ভাইরাস আমাদের আক্রান্ত না করে, আমফান নিয়ে সতর্কবার্তা ধনকরের

শংকর দত্ত, কলকাতা: এটা শ্লেষ নাকি সতর্কবাণী বোঝা মুশকিল। টুইটে লিখেই দিলেন, ‘এই চরম দুঃসময়ে যে আমরা রাজনৈতিক ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত না হয়।’
তিনি এমনই মানুষ। ভালো কাজ করলেই দরাজ সার্টিফিকেট। আবার মানুষ বিরুদ্ধে গেলে নিজেই মাঠে নেমে পড়েন।
জগদীশ ধনকর। পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল। একদিকে করোনা নিয়ে নাজেহাল রাজ্যে। তারই মধ্যে উটকো হিসাবে জুটলো ‘আমফান’। বিষয়টা যা তা নয়। ফোনি বা আইলাকেও ছাড়াতে পারে এর বিশালতা। জলে কুমির ডাঙ্গায় বাঘের মতোই করোনা ভাইরাস ও আমফান এই দুয়ের মোকাবিলায় মানুষ যেমন ত্রস্ত। তেমনিই মানুষকে বাঁচাতে রাজ্যে ও কেন্দ্রের প্রস্তুতিও তুঙ্গে।

এই অবস্থায় সমস্ত খোঁজখবর রেখেই রাজ্যপাল তিন তিনটি টুইট করেন। তাও আবার বাংলায়। যেখানে আমফান নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর দফতরের আগাম ব্যবস্থাপনা নিয়ে তিনি যতপরোনাস্তি খুশি এবং উচ্ছস্বিত। তিনি দুই সরকারের প্রশংসা করেছেন একেরপর এক টুইটে। প্রশংসা করেছেন, আবহাওয়া দফতর ও এনডিআরএফ-এর। তিনি উল্লেখ করেছেন, ‘প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে আমরা সহজেই জেনে যাব আমফানের অবস্থান ও গতিপ্রকৃতি সম্পর্কে।’

সেখানে বিজ্ঞানের আশীর্বাদকেও তিনি মনে করিয়েছেন একই সঙ্গে বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর ও উপকূল রক্ষা বাহিনী যেভাবে সজাগ আছেন তারও প্রশংসা করেছেন।
বস্তুত এর আগে মুখ্যমন্ত্রী তাঁর একাধিক বার্তায় রাজ্যের মানুষকে সতর্ক করেছেন। প্রশাসনকে সবরকম ভাবে মানুষের পাশে দাঁড়াতে বলেছেন। ইতিমধ্যে সেই কাজে সকলেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাঠে নেমে পড়েছেন। সমুদ্র উপকূলবর্তী বাসিন্দা, গরিব মৎস্যজীবী ও সাধারণ মাটির বাড়িতে থাকা মানুষজনকে আগেই সতর্ক করে তাদের অনেককে স্থানান্তর করার ব্যবস্থা নিয়েছে জেলা প্রশাসনগুলি। সেই প্রস্তুতি দেখেই রাজ্যপাল তাকে কুর্নিশ জানিয়েছেন তাঁর টুইটে। একই সঙ্গে তিনিও মানুষকে সতর্ক ও সাবধান থাকতে আহবান জানিয়েছেন।

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের কারো কারো মত। প্রশংসা উনি করলেও ওই ‘রাজনৈতিক ভাইরাস’ কথা টুকুর মধ্যে দিয়েই আসলে মুখ্যমত্রীকে অল্পবিস্তর খোঁচা দিতেও ছাড়লেন না।
সোমবারই প্রধানমন্ত্রী ‘আমফান’ নিয়ে এনডিআরএফ এর সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন। এ রাজ্যের পক্ষে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে এ নিয়ে অভিযোগও ওঠে, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বা মুখ্যসচিবকে অন্ধকারে রাখা হয়েছে বলে। সেটাকে মনে করাতেই রাজ্যপালের এই কটাক্ষ হলেও হতে পারে বলে কেউ কেউ মনে করছেন।

Related Articles

Back to top button
Close