fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

‘আর নেই দরকার দুয়ারে সরকার, এইবার দরকার বিজেপি সরকার’: শঙ্কুদেব পন্ডা

সুদর্শন বেরা, পশ্চিম মেদিনীপুর: হুমগড়ে বিজেপির যুব মোর্চার সমাবেশ থেকে তৃণমূলকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করলেন শঙ্কুদেব পন্ডা। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় গড়বেতা বিধানসভার অন্তর্গত হুমগড় দুর্গা মন্দির সংলগ্ন মাঠে বিজেপির যুব মোর্চার উদ্যোগে এক জনসভার আয়োজন করা হয়। ওই জনসভায় উপস্থিত ছিলেন বিজেপির যুব মোর্চার রাজ্য কমিটির সহ-সভাপতি শঙ্কুদেব পণ্ডা ,সাংসদ সৌমিত্র খাঁর স্ত্রী সুজাতা খাঁ, বিজেপির জেলা সভাপতি সমিত কুমার দাস সহ আরো অনেকে। বিজেপির যুব মোর্চার রাজ্য কমিটির সহ-সভাপতি শঙ্কুদেব পণ্ডা তীব্র ভাষায় তৃণমূল কংগ্রেসের পাশাপাশি পুলিশকেও আক্রমণ করেন। তিনি তার ভাষণে বলেন, ‘আর নেই দরকার দুয়ারে সরকার, এইবার দরকার বিজেপি সরকার’। তিনি আরও বলেন, ‘যে গোটা রাজ্য জুড়ে কাটমানির সরকার চলছে। রাজ্যজুড়ে সন্ত্রাস চালাচ্ছে তৃণমূল।

২০২১ সালে রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় এলে হিসেব কড়াই গন্ডায় বুঝে নেবে। যেসব পুলিশকর্মীরা তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে দালালী করছে তাদের নামের তালিকা তৈরি করে রাখা হচ্ছে। রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তৃণমূল নেতারা যেভাবে টাকা চুরি করছে ক্ষমতায় এলে সেই টাকা উদ্ধার করা হবে। তিনি গড়বেতার বিধায়ক আশিস চক্রবর্তীর নাম করে তাকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন। শঙ্কুদেব পণ্ডা তার ভাষণে বলেন, ‘যে গড়বেতার বিধায়ক কোটি কোটি টাকা উন্নয়নের চুরি করেছে। ২০২১ সালে তার হিসেব নিকেশ হবে। বালি থেকে ঘর কোনটাই বাদ যায়নি। তৃণমূল কংগ্রেস আগামী দিনে আর থাকবে না। আগামী দিনে বাংলায় ক্ষমতায় আসবে বিজেপি। তখন তৃণমূল কংগ্রেস নেতাদের ঠাঁই হবে জেলে। বাংলায় উন্নয়ন হবে বাংলার মানুষকে সঙ্গে নিয়ে’। তাই তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের নেতাদের সাবধান থাকার কথা বলেন। সেই সঙ্গে পুলিশকেও সংযত হতে বলেন।

শঙ্কুদেব পণ্ডার বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিধায়ক আশিস চক্রবর্তী বলেন, ‘মিথ্যা কথা বলে যারা মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে, গড়বেতার মানুষ তাদের উপযুক্ত জবাব দেবেন। গড়বেতার মানুষ শান্তি ও উন্নয়নে বিশ্বাস করে। তাই সাম্প্রদায়িক শক্তি বিজেপিকে গড়বেতা র মাটিতে জায়গা দেবে না। আমি কোন টাকা চুরি করিনি এবং কোনও দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত নয়। যদি ওদের হাতে কোনও প্রমাণ থাকে তাহলে সরাসরি প্রমাণ করতে বলছি। এভাবে মানুষের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করে কিছু সময় দলীয় কর্মীদের চুপ করে রাখা যায়। কিন্তু গড়বেতার মানুষ জানেন কে কাজের মানুষ আর কারা কাজের মানুষ নয়’।

আরও পড়ুন: রাজ্যব্যাপী ‘২৩ জানুয়ারি’ পালনের সিদ্ধান্ত অল ইন্ডিয়া লিগ্যাল এড ফোরামের

তাই তিনি শঙ্কুদেব পণ্ডা কে বলেন মিথ্যা কথা না বলে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল সেই প্রতিশ্রুতি পালন করেছে কি বিজেপি? প্রতিটি মানুষের অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা ঢুকেছে? সেটা আগে জনগণের সামনে তুলে ধরা উচিত। তিনি বলেন, ‘বিজেপি হাজার চেষ্টা করলেও বাংলায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জয়যাত্রা রুখতে পারবে না। বাংলার মানুষ তৃতীয়বারের জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে আবার প্রতিষ্ঠা করবে’।

Related Articles

Back to top button
Close