fbpx
কলকাতাহেডলাইন

সংবাদ মাধ্যমের প্রতি আমরা শ্রদ্ধাশীল, মহুয়ার পাল্টা তৃণমূল

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: সংবাদমাধ্যমকে তির্যক ভাষায় আক্রমণে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্রের পাশে নেই দল। স্পষ্ট জনিয়ে দিল তৃণমূল। মঙ্গলবার একে একে দলের ভরসা যোগ্য নেতারাও বিবৃতি দিয়ে সঙ্গ ত্যাগ করল মহুয়ার। যদিও তারা মহুয়াকে নিয়ে প্রকাশ্যে নিন্দা করেননি। তবে দলের তরফে পঞ্চয়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় প্রথমে তৃণমূল ভবনে সাংবাদিক বৈঠকে ও পরে বেহালা ম্যানটনের দলীয় কর্মিসভায় শিক্ষামন্ত্রী তথা মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘যারা সংবাদমাধ্যমের জন্য কাজ করছেন তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।’ এক কথায় তৃণমূলের পক্ষ থেকে সাফ জনিয়ে দেওয়া হয় তারা কোন ভাবেই মহুয়ার এই ঔদ্ধ্ত্বকে সমর্থন করছেন না।
এদিন তৃণমূল ভবনে সাংবাদিক বৈঠক করে মহুয়া মৈত্রের ‘দু’পয়সার সংবাদ মাধ্যম’ মন্তব্যের দায় নিলেন না সুব্রত মুখোপাধ্যায়। তিনি পরিষ্কার জানিয়ে দেন, ‘এটা ওর ব্যক্তিগত কথা। দলের কথা নয়।’ সাংবাদিক বৈঠকে সুব্রতবাবু জানান, ‘মহুয়া কী বলেছে আমি জানি না। আমি খতিয়ে দেখিনি। তবে এটুকু বলতে পারি, এটা ওঁর কথা। আমাদের দলের কথা নয়। আমাদের দল এবং দলনেত্রী সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখে চলেন। হৃদ্যতা বজায় রেখেই আমরা চলি। যাঁরা জানেন, তাঁরা জানেন।’ বস্তুত এই বক্তব্যের মাধ্যমেই সুব্রত স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে, তৃণমূল কংগ্রেস মহুয়ার এই মন্তব্যকে সমর্থন করছে না।
অন্যদিকে বেহালা ম্যানটনের নিজের কার্যালয়ের বাইরের দলীয় কর্মসূচিতে মহুয়ার দু’পয়সার মন্তব্য প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের উত্তরে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন,’সাংবাদিকদের প্রতি আমি শ্রদ্ধাশীল। অনেক সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে আমি সবসময় একমত নাও হতে পারি। কিন্তু, তাতেও তাঁদের কাজের প্রতি আমার আস্থা ও সম্মান রয়েছে। তাঁরা যেন সবসময় মানুষের কথা বলেন।’
পাশাপাশি মহুয়া মৈত্রের মন্তব্যের তীব্র নিন্দা করলেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুনাল ঘোষ। তার কথায়, ‘অন্তর থেকে ক্ষমা চাওয়া উচিত মহুয়ার।’ তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র তথা সাংবাদিক কুণাল ঘোষ দলীয় সাংসদের এই মন্তব্যের প্রতিবাদ জানান ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে। তিনি লেখেন, ‘মন্তব্যটি চরম দুর্ভাগ্যজনক। আশা করব মহুয়া মৈত্র সাংবাদিকদের যন্ত্রণাটি অনুভব করবেন এবং তাঁর প্রতিবাদযোগ্য মন্তব্যটি থেকে সরে আসবেন।’ এদিন কুনাল ঘোষ মহুয়া মৈত্র মন্তব্যের ঘোরতর নিন্দা করে জানান, ‘কোন পেশাকে তিনি ছোট করতে পারেন না। অন্তর থেকে ক্ষমা চাওয়া উচিত মহুয়ার।’
গোটা ঘটনার সূত্রপাত হয় রবিবার। সেখানে এক সভায় মহুয়া মৈত্র মাইকে বক্তব্য রাখার সময় সংবাদ মাধ্যমকে দু’পয়সার প্রেস বলে উল্লেখ করেন। এরপরে তার এই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে সমালোচনার ঝড় ওঠে।
প্রেস ক্লাবের তরফে বিবৃতি দেওয়া হয়। গোটা ঘটনার পর নিজের ভুল বুঝতে পেরে তিনি ক্ষমা চাইবেন এমনটাই মনে করা হয়েছিল। তুই কে নিজের মন্তব্যের প্রেক্ষিতে ব্যঙ্গাত্মক শ্লেষ মিশিয়ে যে বিবৃতি তৃণমূল সাংসদ দিয়েছেন তাতে বোঝা গিয়েছে তিনি তার মন্তব্যের জন্য বিন্দুমাত্র দুঃখিত নন বরং তিনি তার মন্তব্য থেকে একফোঁটাও সরে আসছেন না।

Related Articles

Back to top button
Close