fbpx
কলকাতাপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

‘পুজোয় এবার খোলা প্যান্ডেল’, দুর্গাপুজো কমিটিগুলিকে পরামর্শ মমতার

আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর পুজো কমিটির সদস্যদের সঙ্গে বৈঠক

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা পরিস্থিতিতে সমস্ত অনুষ্ঠানই কাটছাঁট হয়েছে। এই আবহেই আসন্ন শারদোত্‍সব। করোনা পরিস্থিতিতে অনেক পুজোকমিটিই এবার বাজেট কাটছাঁট করেছে। এবারের দুর্গাপুজোর মণ্ডপগুলি খোলামেলা রাখার পরামর্শ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। এখনই সে বিষয়ে কিছু জানায়নি রাজ্য সরকার। আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর পুজো কমিটির সদস্যদের সঙ্গে বৈঠকে সমস্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেই জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সোমবার নবান্নে গ্লোবাল অ্যাডভাইজারি বোর্ডের সঙ্গে বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। তারপর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, “পুজো কমিটিগুলিকে অনুরোধ করব, খোলামেলা প্যান্ডেল করার। কারণ, অনেকেই অঞ্জলি দিতে আসেন। তাতে ভিড় বাড়বে। প্যান্ডেলের একাংশ খোলা থাকলে হাওয়া, বাতাস বইবে। জীবাণু থাকলে তা বেরিয়ে যাবে। যা প্যান্ডেলে ভিতরে থাকা ভেন্টিলেটর দিয়ে বেরনো সম্ভব নয়।”

দেশের অন্য রাজ্যগুলির পাশাপাশি করোনার সংক্রমণ বেড়েই চলেছে বাংলায়। এই আবহেই শারদোত্‍সবের ঠাকে কাঠি পড়ল বলে। দিনকয়েক পরেই মহালয়া। যদিও এবার পুজোর এক মাস আগেই মহালায় পড়েছে। করোনা আবহে এবার দুর্গাপুজোয় আরো বেশি সতর্কতা নেওয়ার পরামর্শ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।রাজ্যের তরফেও গ্লোবাল উপদেষ্টা কমিটির সুপারিশ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জানানো হবে পুজো কমিটির কর্তাদের। করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রুখতে সব দিক ধরে-ধরে আলোচনা করা হবে। সব দিক খতিয়ে দেখেই দুর্গাপুজো পরিচালনা কীভাবে হবে তা নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর পুজো কমিটির সদস্যদের সঙ্গে বৈঠকের পরই কোভিড পরিস্থিতিতে কীভাবে দুর্গাপুজো হবে, সে সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেই জানিয়েছেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান।

আরও পড়ুন: ইমাম ভাতার পরে এবার পুরোহিত ভাতা, সঙ্গে বাড়িও! ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

করোনা বিধি মেনে চলতি বছরে কীভাবে দুর্গাপুজোর আয়োজন করা হবে, তা নিয়ে সম্প্রতি একটি ভুয়ো মেসেজ ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যাতে উল্লেখ ছিল চলতি বছর রাতভর প্যান্ডেলে ঘোরা যাবে না। কারণ পুজোর দিনগুলিতে কারফিউ হবে। এছাড়াও পুজো সংক্রান্ত নানা বিধিনিষেধের কথা উল্লেখ ছিল ওই মেসেজে। যা পুলিশের নজরে আসামাত্রই শোরগোল শুরু হয়। ভুয়ো মেসেজ প্রসঙ্গে অত্যন্ত ক্ষুব্ধ হন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । তড়িঘড়ি ধরপাকড়ের নির্দেশ দেন। যারা এই কাজ করেছে তাদের কান ধরে ওঠবোস করানোর পরামর্শ দেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান। সেই অনুযায়ী ভুয়ো মেসেজ ছড়ানোর দায়ে ইতিমধ্যেই কলকাতা এবং রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতারও করা হয়েছে।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close