fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

রাজ্যের উদ্যোগে ত্রিস্তরীয় মাস্ক ‘বাংলা আমার মা’

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  প্রতিদিন রেকর্ড হারে বাড়ছে বাংলায় করোনাইয় আক্রান্তের সংখ্যা। শত চেষ্টাতেও বাদ মানছে না সংক্রমণ। সংক্রমণ ঠেকাতে রাজ্য সরকার রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে। করোনার থেকে রেহাই পাওয়ার একমাত্র উপায় মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা, বারবার হাত ধোয়া। রাজ্যবাসীর জন্য জন্য নতুন করে ত্রিস্তরীয় মাস্ক ( থ্রি লেয়ার) তিন কোটি মাস্ক বিতরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। মাস্ক তৈরির এই কাজের মধ্যে দিয়ে গ্রামীণ এলাকার ১৫-২০ হাজার প্রান্তিক মানুষ পাবেন রোজগারের সুযোগ। বিপর্যয়ের এই পর্বে বাড়বে নগদ জোগান। চাঙ্গা হবে রাজ্যের অর্থনীতি। ত্রিস্তরীয় মাস্ক দেবে রাজ‍্য সরকার, বিনা মূল‍্যে, ৩ কোটি মাস্ক তৈরি করতে দেওয়া হয়েছে। মুখ‍্যমন্ত্রী এই মাস্কের নাম দিয়েছে বা্ংলা আমার মা।

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন ৩ কোটি মাস্ক  তৈরি করে বিতরণের করা হবে। তা দেওয়া হবে রাজ্যের এক কোটি মানুষকে। পরে রাজ্যের ১০ কোটি মানুষকেই তা দেওয়া হবে।  মাস্কে লেখা থাকবে বাংলা আমার মা ও পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

 এক কোটি শ্রম দিবস তৈরী হয়েছে। স্বনির্ভর গোষ্ঠি,স্বেচ্ছাসেবি সংস্থা, তন্তুজ তৈরি করছে।চলতি সপ্তাহে এই মাস্ক বিতরণ করা হবে। আশা কর্মি,অঙ্গন ওয়ারি,স্কুল ছাত্র ছাত্রী,১০০ দিনের কর্মিরা এই মাস্ক পাবে, পুলিশ, নার্স, চিকিৎসকদের ও দেওয়া হবে।প্রথমে ৩ কোটি ,পরে রাজ্যের সবাইকে এই মাস্ক দেবে রাজ্য। নামকরন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে।সূত্রের দাবি, লকডাউনের তিন মাসে ইতিমধ্যেই ১০০ দিনের কাজে ১১.৫৩ কোটি কর্মদিবস তৈরি হয়েছে। এবার মাস্ক তৈরির এই প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে আরও প্রায় দেড় কোটি কর্মদিবস তৈরি করাটাই টিম মমতার টার্গেট।

আরও পড়ুন: ময়নাতদন্তের আগেই আত্মহত্যা তত্ত্ব! টুইটে সন্দেহ প্রকাশ রাজ্যপালের

এমএসএমই দফতরের ডিরেক্টর অনুরাগ শ্রীবাস্তবের কথায়, “এহেন বিরাট কর্মযজ্ঞের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে আমরা গর্বিত। গোটা দেশের মধ্যে, বাংলাই প্রথম রাজ্য, যারা এরকম বিরাট উদ্যোগ নিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে ৩ কোটি মাস্ক তৈরির এই কাজ শুরু করেছি আমরা। বিপর্যয়ের এই পর্বে গ্রামীণ এলাকার মহিলাদের রোজগারের মাধ্যম হবে এই প্রক্রিয়া।”

 

Related Articles

Back to top button
Close