fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

‘যখনই মহিলাদের কোনও সুযোগ দেওয়া হয়েছে তাঁরা ভারতকে গর্বিত করেছে’: নরেন্দ্র মোদি

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  বিশ্ব উষ্ণায়ন থেকে রাম মন্দির- ৭৪ তম স্বাধীনতা দিবসে বিভিন্ন সমসাময়িক প্রসঙ্গ উঠে এল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভাষণে। একাধিক স্তরের নিরাপত্তা। সামাজিক দূরত্ব। লালকেল্লা ঘিরে রেখেছিল ৪ হাজার নিরাপত্তারক্ষী। এছাড়াও ক্রমাগত ড্রোনের নজরদারি। ৩০০ ক্যামেরা ইনস্টল করা হয় লালকেল্লা চত্বরে। তবে, শুরুতেই দেশের করোনা পরিস্থিতির কথা তুলে ধরেন তিনি। স্বাস্থ্যকর্মীদের ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি মনে করিয়ে দিলেন করোনা মোকাবিলায় আরও সতর্কতার কথা।

এদিন প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আগামী বছর ২০২২ সালে ভারতের ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবস। যেভাবেই হোক তার আগে আমাদের আত্মনির্ভর হতেই হবে। ভারত আত্মনির্ভর হবেই। দেশবাসীর সামর্থ্যে প্রতি আমার আস্থা রয়েছে। দেশবাসীর সংকল্পের উপর আমার বিশ্বাস রয়েছে। ভারত যা ভাবে, তাই করে। ইতিহাস এর সাক্ষী রয়েছে।’

দেশে মহিলারা এখন কয়লা খনিতে কাজ করেন, ফাইটার জেট নিয়ে আকাশেও ওড়েন। গর্ভবতী মহিলাদের ৬ মাসের সবেতন ছুটি দেওয়া হয়। ১ টাকায় স্যানিটারি ন্যাপকিন পৌঁছে দেওয়া হয় ভারতের মহিলাদের জন্য। যখনই মহিলাদের কোনও সুযোগ দেওয়া হয়েছে তাঁরা ভারতকে গর্বিত করেছে, ভারতকে শক্তিশালী করেছে। মহিলাদের সম পরিমাণ সুযোগ দেওয়ার জন্য আজ আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। মহিলাদের সমানাধিকারে জোর দেওয়ার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি জানান, জন ধন যোজনার ৪০ কোটি টাকার মধ্যে ২২ কোটি শুধুমাত্র মহিলাদের জন্য বরাদ্দ হয়েছে। সেই সঙ্গে প্রতিরক্ষা, স্বাস্থ্য, প্রযুক্তিতে পুরুষদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মহিলাদের এগিয়ে আসার কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, “আজ পুরুষের সঙ্গে সমান সারিতে মহিলারা। দেশের সশস্ত্র প্রতিরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ অংশ মহিলারা।”

সাম্প্রতিক শিক্ষা ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তনের বিষয়টিও উঠে আসে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে। মোদী বলেন, আত্মনির্ভর ভারতের ‘প্রথম চরণ’ হিসেবে এক নতুন শিক্ষানীতি পেয়েছে দেশ। গোটা দেশে তার প্রয়োগ করতে হবে। তিনি বলেন, “নয়া শিক্ষা নীতি একবিংশ শতাব্দীর ভারত গঠন করবে।” প্রযুক্তি ক্ষেত্রেও উন্নতির মাধ্যমে দেশে আজ ৩ লক্ষ কোটি টাকারও বেশি ডিজিটাল লেনদেন সম্ভব হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

আরও পড়ুন: বিজ্ঞানীদের সবুজ সংকেত পেলেই করোনার ভ্যাকসিন পাবেন ভারতীয়, লালকেল্লা থেকে ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর  

করোনার বিরুদ্ধে সামনে থেকে লড়াই করা ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মীদের আমি নত মস্তকে প্রণাম করছি। দেশ আপনাদের স্যালুট করছে আজ।  আমাদের বীর জওয়ানদের প্রতি আমার প্রণাম। সীমান্ত আগলে রেখে সর্বদা আমাদের রক্ষা করছেন। দেশবাসী তাঁদের বলিদানকে স্যালুট করছে। আত্মনির্ভর ভারতের মাধ্যমে ভারত আগামী দিনে অন্য উচ্চতায় পৌঁছবে। ইতিহাস সাক্ষী আছে, ভারত যা স্থির করে করবে, তা করেই ছাড়ে। ১৩০ কোটি জনতার মন্ত্র আত্মনির্ভর। এই দেশ, দেশবাসী, আমরা সবাই বিশ্বাস করি বাসুদেব কুটুম্ববকম। গোটা বিশ্বই একটি পরিবার।

করোনা মহামারী যে দেশবাসীকে স্তব্ধ করে দিয়েছে, এদিন সেকথা স্বীকার করে নিয়েছেন মোদি। এবছর করোনার প্রকোপে প্রথা ভেঙে লালকেল্লায় শিশুদের উপস্থিত থাকার অনুমতি দেওয়া হয়নি। সেটা যে প্রধানমন্ত্রীকে ব্যথিত করেছে, সেটা তাঁর বক্তব্যেই স্পষ্ট। মোদি বললেন,”আমরা খুব কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। আমি আমার সামনে আজ ছোট ছোট শিশুদের দেখতে পাচ্ছি না। করোনা সবাইকে থামিয়ে দিয়েছে। এই কঠিন সময়ে করোনা যোদ্ধারা আরও একবার বুঝিয়ে দিয়েছেন, সেবাই পরম ধর্ম। আমি করোনা যোদ্ধাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।”

 

Related Articles

Back to top button
Close