fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লকডাউনে রাস্তায় কেন?… ‘পুজো দিতে যাচ্ছি স্যর’……..!

জেলা প্রতিনিধি, দিনহাটা: করোনা  মোকাবিলায় সাপ্তাহিক লকডাউনের দ্বিতীয় দিন পুলিশের ভূমিকায় কার্যত শুনশান চেহারা নিল দিনহাটা।নানা অছিলায় যারা ঘর থেকে বেরিয়েছিল তাদেরকে রাস্তাতেই আটকে দিল পুলিশ। লকডাউন ঘোষণা সত্ত্বেও নানা অছিলায় যারা ঘর থেকে বের হন তাদের পুলিশ জিজ্ঞেস করতেই কেউ বলে ওষুধ আনতে দোকানে যাচ্ছি। আবার কেউ বলে ব্যাংক কিংবা এটিএমে যাচ্ছি। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ওষুধ আনতে যাচ্ছি জানাতেই পুলিশ প্রেসক্রিপশন দেখতে চাইলেই অধিকাংশই তা দেখাতে পারেননি। যারা প্রেসক্রিপশন দেখাতে পারেননি তাদের পত্রপাঠ বাড়িতে ফেরত পাঠান পুলিশ।  দিনহাটা শহরের পাঁচ মাথার মোড় সহ মহকুমার বিভিন্ন স্থানে সাপ্তাহিক লকডাউন কে সার্থক করে তুলতে লাঠি হাতে পুলিশ কড়া হতেই অল্প সময়ের মধ্যেই শুনশান হয়ে পড়ল  দিনহাটা শহরের পাঁচ মাথার মোড় সহ বিভিন্ন এলাকা।

আরও পড়ুন:হাড়োয়া কাণ্ড: নির্যাতিতার বয়ান তিনি ধর্ষিতা… পুলিশের দাবি গণধর্ষণের প্রমাণ মেলেনি!

দিনহাটা মহকুমা পুলিশ আধিকারিক মানবেন্দ্র দাস, দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত, এসআই বিমান সরকার, রাজু রায়, দীপক রায় থেকে শুরু করে পুলিশের অন্যান্য কর্মীরা শনিবার সকাল থেকেই অভিযানে নামেন। সাইকেল আরোহী থেকে শুরু করে মোটর বাইক চালক এমনকি পায়ে হেঁটে যারা নানা অছিলায় এদিন বাইরে বেরিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধেও করা হল পুলিশ। কেউ কেউ আবার পুলিশের কাছে হাতজোড় করে ক্ষমা ও চান। কিন্তু পুলিশের কঠিন ও  কড়া মনোভাবে কার্যত শুনশান হয়ে পড়ে দিনহাটা। পুলিশের এই ভূমিকাকে সাধুবাদ জানান সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ।লকডাউনের মধ্যে যারা কোনও কারণ ছাড়াই ঘর থেকে বের হন এদিন তাদের পুলিশ রাস্তায় আটকালে সঠিক উত্তর দিতে না পারায় তাদের অনেকেরই গাড়ি আটকে দেওয়া হয়। এমনকী যারা সাইকেল নিয়ে বের হয়েছিলেন তাদের সাইকেলের চাকার হাওয়া ছেড়ে দেওয়া হয়।

লকডাউন চলাকালীন শনিবার বেলা বারোটা নাগাদ দিনহাটা শহরের  এক যুবক কোনও রকম হেলমেট ছাড়াই বয়স্ক এক মহিলাকে সঙ্গে নিয়ে শহরের পাঁচ মাথার মোড় হয়ে মন্দিরের দিকে যাচ্ছিলেন। পুলিশ আটকাতেই দুজনই বলেন পুজো দিতে যাচ্ছি। লকডাউনে বের হয়েছেন কেন, হেলমেট পরেননি কেন এসব নানা প্রশ্ন পুলিশ একের পর এক  করতেই দুজনেই হাতজোড় করে ক্ষমা চান। কিন্তু তাতেও মেলেনি রক্ষা। আটকে দেওয়া হয় গাড়ি।

আরও পড়ুন:‘দলকে পাবলিক তামাশায় পরিণত করতে পারেন না,’ পাইলটকে আক্রমণ বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতার

দিনহাটা মহকুমা পুলিশ আধিকারিক মানবেন্দ্র দাস বলেন, করোনা মোকাবিলায় রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে সপ্তাহে দুই দিন লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এই রোগের একমাত্র ওষুধ ঘরে থাকা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা। সরকারি এই লকডাউনকে সফল করে তুলতে পুলিশ নজরদারি বাড়াতেই এদিন  কার্যত শুনশান ছিল দিনহাটা। লকডাউনকে সফল করে তুলতে পুলিশের এই অভিযান চলবে বলেও আধিকারিক জানান।

Related Articles

Back to top button
Close